মেইন ম্যেনু

ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতেও ছাত্রদল নেতা

সদ্য ঘোষিত ছাত্রলীগের ৩০১ সদস্য বিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে ছাত্রদলের এক নেতাকে পদ দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সূর্যসেন হল শাখা ছাত্রদলের ২০০৫-০৬ সেশনে গঠিত কমিটির কার্যকরী পরিষদে সদস্যের দায়িত্বে থাকা ওই নেতাকে নবগঠিত ছাত্রলীগের কমিটিতে সহ-সভাপতির দায়িত্ব দেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

এরআগে ছাত্রদলের ৭৩৬ সদস্য বিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে ছাত্রলীগের একাধিক নেতাকে পদ দেয়ার অভিযোগ উঠেছিল।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, অভিযুক্ত নেতার নাম এরশাদুর রহমান চৌধুরী। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সূর্যসেন হল শাখার তৎকালীন ছাত্রদলের সভাপতি রেজাউল করিম রেজা ও সাধারণ সম্পাদক আ. করিম সরকার কমিটিতে কার্যনির্বাহী সদস্য ছিলেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে তৎকালীন ছাত্রদলের হল শাখার এক শীর্ষ নেতা বলেন, এরশাদ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার পর ছাত্রদলের রাজনীতিতে সক্রিয় ছিলেন। তখন ছাত্রদলের প্রতিটি কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করতেন। পরবর্তী তার সক্রিয় ভূমিকার কারণে ৬১ সদস্য বিশিষ্ট হল কমিটিতে তাকে কার্যকরী সদস্যের দায়িত্ব দেয়া হয়।

এদিকে ছাত্রদলের রাজনীতিতে সম্পৃক্ত থাকা এই নেতাকে ছাত্রলীগের কমিটিতে পদ দেয়ার মিশ্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে। অবশ্য কমিটিতে পদ পাওয়ার পর এরশাদ ছাত্রদলের রাজনীতিতে নিষ্ক্রিয় হয়ে গেছেন- এমন গুঞ্জনও শোনা যাচ্ছে।

তবে এসব অভিযোগ অস্বীকার করে ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় সংসদের সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন বলেন, এরশাদুর রহমান চৌধুরী ছাত্রদলের রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন এমন কোন প্রমাণ তিনি পাননি।

তিনি আরো বলেন, এরশাদুর রহমান চৌধুরী ছাত্রলীগের সুর্যসেনের সহ-সভাপতি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক নেতা, সাবেক কেন্দ্রীয় নেতা ছিলেন। সে ত্যাগী নেতা। তাকে মূল্যায়ণ করতে হবে।

গত বছরের ২৬-২৭ জুলাই ছাত্রলীগের ২৮তম জাতীয় সম্মেলন হয়। ওই সম্মেলনে পাঁচ সদস্যের ‘সুপার ফাইভ’ কমিটি গঠিত হয়। সম্মেলনের প্রায় সাত মাস পর সোমবার রাতে পূর্ণাঙ্গ কমিটি পেয়েছে ছাত্রলীগ।

আরো পড়ুন…

ছাত্রদল কর্মী ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় আইন সম্পাদক!