মেইন ম্যেনু

ছিটমহলগুলোতে শুরু হয়েছে জনগণনার কাজ

ছিটমহলবাসীদের ইচ্ছার ভিত্তিতে নাগরিকত্ব গ্রহণের বিষয়ে ভারত এবং বাংলাদেশের মধ্যেকার ১৬২ টি ছিটমহলে আজ সোমবার থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হয়েছে জনগণনার কাজ। সম্প্রতি পাশ হওয়া ভারত-বাংলাদেশ স্থল সীমান্ত চুক্তি অনুসারে ছিটমহলগুলোতে জনগণনার পাশাপাশি চলবে ভুমি পরিমাপের কাজও।

উৎসবমুখর পরিবেশে সোমবার বেলা ১১টায় শুরু হওয়া যৌথ জনগণনার কাজ চলবে আগামী ১৬ জুলাই পর্যন্ত। ভারত-বাংলাদেশ ছিটমহল বিনিময় আহবায়ক কমিটির যুগ্ম-সচিব দীপ্তিমান সেন গুপ্ত যৌথ জনগণনার কাজের শুভ উদ্বোধন করেন।

ছিটমহলগুলোর অধিবাসী এবং তাদের ভুমি নিয়ে জরিপ পরিচালনায় ২৫টি ক্যাম্প খোলা হয়েছে। বাংলাদেশের লালমনিরহাট, পঞ্চগড়, কুড়িগ্রাম এভং নীলফামারী জেলায় ভারতীয় ১১১টি ছিটমহলের জরিপকার্য পরিচালনার দায়িত্ব দেয়া হয়েছে ভারতের ১৫টি জরিপ পরিচালনাকারী দলকে। একইসঙ্গে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের কোচবিহারে বাংলাদেশের ৫১টি ছিটমহলের জরিপ পরিচালনা করবে ২৫টি বাংলাদেশি দল।

৫ সদস্যের সমন্বয়ে গঠিত প্রতিটি দলে উভয় দেশের প্রতিনিধিরা থাকবেন এবং একজন সুপারভাইজার সর্বতক্ষণ তাদের কার্যক্রম নিরীক্ষা করবেন। প্রথম দিনেই ভারতীয় ছিটমহল যেমন-শিবপ্রসাদ-মুস্তাফিজ, মশালডাঙ্গা এবং পাটুরকাঠির ঘুরে জরিপের ১০ শতাংশ কাজ হয়েছে বলে জানিয়েছেন দীপ্তিমান সেন গুপ্ত।

জনগণনার কাজকে স্বাগত জানিয়ে ছিটমহলগুলোর অধিবাসীরা জরিপ কার্য পরিচালনাকারীদের সব রকম সহযোগিতা করছেন বলে শিবপ্রসাদ-মুস্তাফিজ ছিটমহলের জরিপ কার্য শেষ করে জানান বাংলাদেশের মাহবুবুর রহমান ও ভারতের সজল সরকার।

আগামী ১৬ জুলাই পর্যন্ত চলবে ছিটমহলগুলোতে জনগণনার কাজ। চলতি মাসের শেষ নাগাদ জরিপ পরিচালনাকারী দলগুলো দুই দেশের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট তাদের জরিপ প্রতিবেদন হস্তান্তর করবে। সম্পাদিত চুক্তি অনুযায়ী আগামী ৩১ জুলাই থেকে দু’দেশের মধ্যে ছিটমহল বিনিময় শুরু হবে।