মেইন ম্যেনু

ছিটমহলের যৌথ জরিপ ৬ জুলাই

ভারত-বাংলাদেশের ১৬২ ছিটমহল ৩১ জুলাইয়ের মধ্যে বিনিময়কল্পে যৌথ জরিপ কার্যক্রম সম্পন্ন করতে দুই দেশের জেলা প্রশাসক পর্যায়ে দ্বি-পাক্ষিক বৈঠক হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত প্রায় ৬ ঘণ্টাব্যাপী কোচবিহার জেলার মেখলিগঞ্জ মহকুমার চ্যাংরাবান্ধা স্থলবন্দর বিএসএফ ক্যাম্পে এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। সন্ধ্যা পোনে ৭টার দিকে বাংলাদেশ প্রতিনিধি দল ভারত থেকে দেশে ফেরেন।

কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসক এ বি এম আজাদের নেতৃত্বে ১৬ সদস্যের বাংলাদেশী প্রতিনিধি দল ওই বৈঠকে অংশ নেন।

বাংলাদেশের হয়ে উপস্থিত ছিলেন— লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক হাবিবুর রহমান, নীলফামারী জেলা প্রশাসক জাকির হোসেন, পঞ্চগড় জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ সালাহ উদ্দিন, লালমনিরহাট-১২ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল আহমদ বজলুর রহমান হায়াতী, বিজিবি রংপুর অঞ্চলের পরিচালক লে. কর্নেল সাফিউল আলম, লালমনিরহাট পুলিশ সুপার টি এম মুজাহিদুল ইসলাম, কুড়িগ্রাম পুলিশ সুপার তবারক উল্ল্যাহ, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আক্তার হোসাইন আজাদ, ভুরুঙ্গামারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এজিএম এরশাদ আহসান হাবীব, পাটগ্রাম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নূর কুতুবুল আলম, ডিমলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রেজাউল করিম, বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর পরিচালক জাহিদুল হক সরকার, ভারতের কলকাতায় নিযুক্ত বাংলাদেশ হাইকমিশনের কাউন্সিলর আনোয়ারুল ইসলাম, রংপুর জোনাল সেটেলমেন্ট কর্মকর্তা আব্দুল মান্নান ও টেকনিক্যাল উপদেষ্টা ফাইজুর বারী।

অপরদিকে ভারতের কোচবিহার জেলা শাসক (ডিএম) পি উলাগানাথেনের নেতৃত্বে ১৭ সদস্যের প্রতিনিধি দল বৈঠকে অংশ নেয়। ভারতের প্রতিনিধি দলে ছিলেন পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য বিএসএফের ডিআইজি ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সতান্তওয়াল ত্রিবেদি, কোচবিহার জেলা পুলিশ সুপার রাজেশ কুমার ইয়াদেব, ভারতের অতিরিক্ত পরিসংখ্যান কর্মকর্তা এসকে চক্রবর্তী, বাংলাদেশে নিযুক্ত সহকারী হাইকমিশনার সন্দীপ মিত্র, কলকাতার সহকারি ব্রাঞ্চ সেক্রেটারিয়েট রঞ্জন মন্ডল, আন্ডার সেক্রেটারি (বিএম-৩) বিকাশ শ্রীবাস্তব, পশ্চিমবঙ্গের সেক্রেটারি (স্বরাষ্ট্র) অরুণ সেন, কোচবিহার জেলার অতিরিক্ত জেলা শাসক (সার্বিক) চিরঞ্জীব ঘোষ, কোচবিহারের অতিরিক্ত জেলা শাসক (এলএন্ডএলআর) সঞ্জয় কুমার দাস, মেখলিগঞ্জ সাবডিভিশনাল অফিসার রঞ্জন কুমার ঝাঁ, মাথাভাঙ্গা সাবডিভিশনাল রঞ্জন চক্রবর্তী, দিনহাটা সাবডিভিশনাল অফিসার কৃষ্ণভা ঘোষ, ভারতীয় জরিপ অধিদফতরের উপ-পরিচালক (সার্ভে) উল্লাস চক্রবর্তী, ছিটমহল উন্নয়ন কর্মকর্তা প্রদীপ্ত ভক্ত, কোচবিহার-৩৫ বিএসএফ ব্যাটালিয়নের কমানন্ডেট লে. কর্নেল অমিত লাল তিরকী ও জলপাইগুড়ি-২২ বিএসএফ ব্যাটালিয়নের কমানন্ডেট লে. কর্নেল অজয় লুথারা।

বৈঠক শেষে কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসক এ বি এম আজাদ সাংবাদিকদের বলেন, ‘ছিটমহল বিনিময় বাস্তবায়নকল্পে জরিপকারী ও সুপারভাইজার মনোনয়ন নিয়ে দুই দেশের মধ্যে ফলপ্রসূ আলোচনা হয়েছে। জরিপে ভারতের ৭৫ জন ও বাংলাদেশের ৭৫ জন গণনাকারী অংশ নেবেন। আগামী ২ জুলাই বাংলাদেশে বৈঠক হবে। ওই বৈঠকে গণনাকারীদের তালিকা হস্তান্তর করা হবে। এরপর ৬ জুলাই হতে ১৬ জুলাই পর্যন্ত জরিপকারী সদস্যরা ছিটমহলে থানা লোকজনের বাড়ি বাড়ি গিয়ে গণনা কার্যক্রম পরিচালনা করবেন। প্রতি ৫ জন গণনাকারীকে দেখভাল করবেন এবং সুপারভাইজিং করবেন একজন করে।’