মেইন ম্যেনু

ছুটির দিনেও দর্শনার্থী শূন্য শিশুপার্ক!

শুক্রবার ছুটির দিনে শাহবাগের শিশুপার্কে দর্শনার্থীদের ভিড় নেই! এমন তথ্য শুনলে নগরবাসীর কমবেশি সকলেই রীতিমতো বিস্মিত হবেন। তাদের বিস্মিত হওয়ার যৌক্তিক কারণও রয়েছে বটে।

দেশের সবচেয়ে কম খরচে আবাল বৃদ্ধ-বনিতাদের একমাত্র চিত্ত বিনোদন স্থান এই শিশুপার্ক। নামে যদিও শিশুপার্ক কিন্তু সকল বয়সী মানুষ এখানে বেড়াতে আসেন। শুক্রবার সরকারি ছুটির দিনে সবচেয়ে বেশি দর্শনার্থী এ পার্কে ভিড় জমান। যে সকল অভিভাবক শুক্রবার শিশুদের পার্কে নিয়ে আসেন তারা ঘন্টার পর ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়ে থেকে তবেই একটি দুটি রাইডে চড়ার সুযোগ পান। তাই পারত পক্ষে কেউ শুক্রবার এ মুখো হতে চান না।

কিন্তু আজ ঈদুল আজহার আগে শুক্রবার শিশুপার্কে ব্যতিক্রমধর্মী চিত্র চোখে পড়ে। এদিন বিকেল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত সরেজমিন পরিদর্শনকালে দেখা যায়, মাত্র হাতে গোনা কয়েকশ’ মানুষ শিশু পার্কে সন্তানদের নিয়ে আনন্দচিত্তে ঘুরে বেড়াচ্ছেন, বড় কোন লাইন ছাড়াই বিভিন্ন রাইডে চড়তে পারছেন। কেউ কেউ পার্কের সবুজ ঘাসে বসে খোশগল্প করছেন।

শিশু পার্কের একজন কর্মকর্তা জানান, পবিত্র ঈদুল আজহা দরজায় কড়া নাড়ছে। নাড়ির টানে শহর ছেড়ে গ্রামের বাড়িতে যাচ্ছে লাখ লাখ মানুষ। তাই আজ ভীড় এতো কম। ঈদের দিন থেকে পরবর্তী সাতদিন তাদের দম ফেলার ফুসরত থাকে না। প্রতিটি রাইডে দুপুর থেকে রাত অবধি মানুষের বিশাল লাইন পড়ে।

কলাবাগানের বাসিন্দা বেসরকারি একটি প্রতিষ্ঠানের চাকরিজীবি শামসুন্নাহার বেগম তার দুই শিশু মেয়েকে নিয়ে শুক্রবার বিকেলে পার্কে আসেন। এ প্রতিবেদকের সঙ্গে আলাপকালে তিনি বলেন, সীমিত আয়ের মানুষের জন্য শিশুপার্ক ছাড়া অন্য কোথাও ব্যবস্থা নেই। গত একমাস যাবত মেয়েরা শিশুপার্কে আসতে বায়না ধরছে। শুক্রবার ছাড়া সময় পান না তাই এর আগে দুই শুক্রবার এসে ভীড় দেখে ফিরে গেছেন। কিন্তু আজ ভীড় একেবারেই না থাকায় বেশি করে টিকিট কিনে শিশুদের একই রাইড একাধিকবার চড়াচ্ছেন বলে জানান।