মেইন ম্যেনু

ছেলের বিয়েতে ১৮০০০ বিধবাকে দাওয়াত করে বিশ্ব রেকর্ড

কোনও শুভ অনুষ্ঠানে কাজকর্ম করার জন্যে ডাকা হয় তাদের। বিধবাদের সেখানে প্রবেশাধিকার নেই। বিধবাদের নিয়ে হিন্দু সমাজে এমন অনেক কুসংস্কার প্রচলিত রয়েছে। অবশ্য শহরে এই চিত্রে পরিবর্তন দেখা গেলেও, গ্রামাঞ্চলে চিত্র একেবারেই ভিন্ন। কিন্তু এই সমাজেই এমন কিছু মানুষ আছেন, যাঁরা প্রচলিত নিয়মের বিপরীতে যেতেই বেশি ভালোবাসেন। কুসংস্কারকে পিছনে ফেলে এমনই এক দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন গুজরাটের মেহসানার এক ব্যবসায়ী।

জিতেন্দ্র পটেল তাঁর পরিচিত মহলে জিতুভাই নামেই খ্যাত। বুধবার তাঁর ছেলের বিয়েতে তিনি এক নতুন যুগের সূচনা করলেন। উত্তর গুজরাটের পাঁচ জেলা থেকে মোট ১৮ হাজার বিধবাকে তিনি নিয়ে আসেন তাঁর ছেলে রবি ও পুত্রবধূকে আশির্বাদ করার জন্যে। হিম্মতনগর থেকে ১২ কিলোমিটার দূরে দেরোলে বুধবার এঁরাই ছিলেন বিশেষ অতিথি। বানাসকান্থা, মেহসানা, সাবারকান্থা, পাটান এবং আরাবল্লী জেলা থেকে আসেন তারা।

শুধু তাই নয়, তাদের প্রত্যেককে কম্বল এবং একটি করে চারাগাছ উপহার দেওয়া হয়। খুব গরিব পরিবার থেকে আসা ৫০০ জন বিধবাকে একটি করে গরুও দেওয়া হয়, যাতে আর্থিকভাবে তাঁরা স্বাধীন হতে পারেন।

জিতেন্দ্র পটেলকে এ ব্যাপারে জিজ্ঞাসা করা হলে এই সময়কে জানান, ‘আমার একান্ত ইচ্ছা ছিল আমার ছেলের জীবনের এই বিশেষ দিনে তাকে সেই সব নারী আশির্বাদ করুন যাঁদের সমাজ দূরে সরিয়ে রেখেছে। আমাদের সমাজে কোনও শুভ কাজে বিধবাদের উপস্থিতিকে অপয়া বলে মনে করা হয়। আমি এই কুসংস্কার ভাঙতে চেয়েছিলাম।’