মেইন ম্যেনু

ছেলের শেষকৃত্যে গিয়ে ১৮ বছরের যুবকের প্রেমে পড়লেন মা!

প্রেমের কোনও বয়স হয় না। এই প্রবাদটিকেই আরও একবার সত্যি করেছেন এই যুগল৷ ৭১ বছর বয়সের এই মহিলা প্রেমে পড়েছেন ১৮ বছরের এই কিশোরের। প্রেমের পরিণতিও হয়েছে পরিণয়ের মাধ্যমে। হ্যাঁ, অবাক লাগলেও এমনই ঘটনা ঘটেছে৷ আরও একটা বিষয়ও রয়েছে অবাক হওয়ার মতো। এই যুগলের আলাপ হয় পাত্রীর ছেলের শেষকৃত্যে। ভারতীয় বেশ কিছু গণমাধ্যম এমন খবর প্রকাশ করেছে।

৭১ বছরের ওই পাত্রীর নাম অ্যালমেডা এবং পাত্র হল গ্যারি হার্ডউইক৷ ওদের প্রথম দেখা হয় অ্যালমেডার ছেলের অন্ত্যষ্টিক্রিয়ায়৷ তারপর ওরা তিন সপ্তাহ ধরে দু-জনে মেলামেশা করে বিয়ের সিদ্ধান্ত নেয়৷ অ্যাডমেডা জানিয়েছে তাঁর বাড়িতে তাঁর এক নাতি রয়েছে সে তাঁর নতুন স্বামীর থেকে তিন বছরের বড়৷

অ্যালমেডা বলেছেন যে সেদিন অর্থাৎ তার ছেলের শেষকৃত্যের দিন একটি ছেলে একাই এসেছিল৷ পরে জানতে পারি যে সে সুপারমার্কেটের অ্যাসিসটেন্ট৷ ওইদিন গ্যারি একাই ছিল এটাও আমি বুঝতে পারি৷ তাঁর মনও সেদিন ভালো ছিল না৷

জানা গিয়েছে অ্যালমেডার প্রথম স্বামীর সঙ্গে তার বিবাহ হয় ৪৫ বছর আগে,তাঁর নাম ডোনাল্ড৷ ওনার ২০১৩ সালে সাত মাস হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকার পর তাঁর মৃত্যু হয়৷ অ্যালমেডা জানায় তারপর থেকেই তিনি একাকিত্ব ভোগ করতে থাকেন৷ তারপর তিনি ওয়ালমার্টে তার কাজের জায়গায় ফেরেন,কিন্তু কোনও কিছুতেই তিনি তাঁর চোখের জলকে আটকাতে পারছিলেন না৷ তার সহকর্মীরা তাকে জিজ্ঞাসা করত যে তার কী হয়েছে, কিছু কী সমস্যা হয়েছে সে কিছুই বলতে পারত না৷ তিনি শুধু মনে মনে একজন সোলমেটকে খুঁজতেন৷ কিন্তু কাউকে কিছু বলতে পারতেন না৷

গ্যারি জানিয়েছে বয়স্ক মহিলাদের প্রতি তার দুর্বলতা তিনি যখন ক্লাস এইটে ছিল তখন থেকেই শুরু হয়৷ অ্যালমেডা জানায় যে তিনি সেইদিন লক্ষ্য করেন একটি ইয়ং ছেলে একটি ফুল নিয়ে হাসি হাসি মুখ করে দাঁড়িয়ে আছে৷ তখনও ওকে আমার ভালো লেগেছিল৷ আমরা বেশি সময় পাইনি তবে যথেষ্ট সময় পেয়েছিলাম৷