মেইন ম্যেনু

‘ছেলে-মেয়েদের পড়াশোনা বন্ধ করবেন না’

পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের শ্রেণিকক্ষে ফিরে যাওয়ার আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, শিক্ষকদের বেতন ১২৩ ভাগ বাড়ানোর পরও কেন তাদের এই আন্দোলন।

তিনি বলেন, ছেলে-মেয়েদের পড়াশোনা বন্ধ করবেন না। এটি কেউ মেনে নেবে না।

অষ্টম পে-স্কেলকে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের জন্য বৈষম্য উল্লেখ এবং তাদের জন্য স্বতন্ত্র স্কেলে পাঁচ দফা দাবিতে লাগাতার কর্মবিরতি পালনের কড়া সমালোচনা করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, শিক্ষকের মর্যাদা অনেক ওপরে। একজন শিক্ষক যদি সচিবের মর্যাদা চান, তাহলে তো হলো না। আন্দোলন করে ছেলে-মেয়েদের পড়াশোনা বন্ধ করবেন না।

১০ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে সোমবার বিকেলে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আওয়ামী লীগের সমাবেশে প্রধানমন্ত্রী এ মন্তব্য করেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, শিক্ষা কার্যক্রম যেন সুষ্ঠুভাবে চলে এটি আমরা চাই। একজন শিক্ষকের মর্যাদা অনেক ওপরে। আমার শিক্ষক আনিসুজ্জামান স্যার, আমার শিক্ষক রফিক স্যার। তাদের সম্মান আমার কাছে তাদের মতোই।

যার যার কর্মক্ষেত্র সেখানেই উল্লেখ করে তিনি বলেন, এখন তারা যদি সচিব মর্যাদা চান তবে তো হলো না। ‘তারা সচিবদের মর্যাদা চাইলে কিছু বলার নেই। সম্মানটা নিজেদের ওপর নির্ভর করে। সচিবদের মর্যাদা চাইলে বিসিএস দিয়ে সচিব হয়ে গেলেই পারেন।’

শিক্ষকদের অবসরে যাওয়ার বয়স বাড়ানোর বিষয়টি তুলে ধরে তিনি বলেন, ‘আমার কাছে দাবি করতে হয়নি, আমি শিক্ষকদের অবসরের বয়স ৬৫ করে দিয়েছি। তারা কি চান তাদের বয়স চাকরিজীবীদের মতো ৫৯ এ নিয়ে আসি। কথা ধরলে আসলে অনেক কিছুই ধরা যায়।’

তিনি বলেন, ‘শিক্ষকদের জন্য আরও কিছু করার থাকলে, সরকার সেটা অবশ্যই বিবেচনা করবে। ছেলে-মেয়েদের পড়াশোন বন্ধ করবেন না। ক্লাস না নিয়ে ছেলে-মেয়েদের লেখাপড়া বন্ধ করলে তারা তা মেনে নেবে না।’

‘আপনারা শিক্ষক, আপনারা সম্মান নিয়ে থাকুন। সমস্যা হলে আমরা দেখব। শিক্ষা বন্ধ করবেন না; বিশ্ববিদ্যালয়গুলি সচল করতে হবে।’

প্রসঙ্গত, অষ্টম বেতন কাঠামো ঘোষণার পর থেকেই গ্রেডে মর্যাদার অবনমন এবং টাইম স্কেল ও সিলেকশন গ্রেড বাতিলের প্রতিবাদে আন্দোলনে রয়েছেন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা। দাবি আদায় না হওয়ায় পূর্বঘোষণা অনুযায়ী ৩৭টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতিগুলোর ফোরাম বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশন সোমবার থেকে লাগাতার কর্মবিরতি শুরু করেছে।

শিক্ষকদের অভিযোগ বেতন কাঠামোতে সচিবদের থেকে জ্যেষ্ঠ শিক্ষকদের মর্যাদা নামিয়ে দেওয়া হয়েছে।