মেইন ম্যেনু

জকোভিচকে কাঁদিয়ে শিরোপা ভাভরিঙ্কার

সুইজারল্যান্ডের টেনিস তারকা স্টানিসলাস ভাভরিঙ্কা প্রথমবারের মতো উঠেছিলেন ফ্রেঞ্চ ওপেনের ফাইনালে। সেখানে তাকে লড়তে হয়েছে টেনিসের নম্বর ওয়ান তারকা নোভাক জকোভিচের বিপক্ষে। ফাইনালে মাঠে নামার আগে জকোভিচই ছিলেন ফেভারিট। কিন্তু কে জানত প্রথমবার ফাইনালে উঠেই শিরোপা ছিনিয়ে নেবেন ভাভরিঙ্কা! বিশ্বসেরা তারকাকে হারিয়ে ক্যারিয়ারের প্রথম ফ্রেঞ্চ ওপেন জয়ের পর কেঁদে ফেললেন সুইস এই টেনিস তারকা। তার ক্ষেত্রে এ কথাটি বলা যায়- তিনি আসলেন, খেললেন এবং জয় করলেন।

রোববার ফাইনালে জকোভিচের সঙ্গে ভাভরিঙ্কা ৩ ঘণ্টা ১২ মিনিট লড়াই করেন। শিরোপা জিততে এই সময়ে তাকে চার-চারটি সেট খেলতে হয়। অবশ্য প্রথম সেটেই তিনি ৪-৬ ব্যবধানে হেরে যান। দ্বিতীয় সেটে একই ব্যবধানে জকোভিচকে হারান। তৃতীয় সেটটি ৬-৩ ব্যবধানে জিতে এগিয়ে যান ভাভরিঙ্কা। চতুর্থ ও চূড়ান্ত সেটে ৬-৪ ব্যবধানে জকোভিচকে হারিয়ে প্রথম ফ্রেঞ্চ ওপেন শিরোপা তথা রোঁলা গাঁরো জয় করেন।

৩০ বছর বয়সী ভাভরিঙ্কা এই জয়ের মধ্য দিয়ে ২৮ ম্যাচে অপরাজিত থাকা জকোভিচকে পরাজয়ের স্বাদ দিলেন।

ম্যাচ শেষে সুইস তারকা বলেন, ‘কোর্টে দারুণ একটা পরিবেশ ছিল। এমন একটি অনুভূতি হয়েছে, যা আগে কখনো পাইনি। আমি আমার কোচ মাগনুস নরম্যানকে ধন্যবাদ দিতে চাই। আপনি দুইবার ফ্রেঞ্চ ওপেনের ফাইনালে খেলেছিলেন। কিন্তু শিরোপা জিততে পারেননি। আজ আমি জিতেছি। এই শিরোপাটা আপনার। আমারও বটে।’

ভাভরিঙ্কার প্রশংসা করে জকোভিচ বলেন, ‘জীবনে এমন কিছু জিনিস রয়েছে, যা জয়ের চেয়েও বেশি গুরুত্বপূর্ণ। তা হলো চরিত্র ও শ্রদ্ধা। স্টান তুমি গ্রেট চ্যাম্পিয়ন। তুমি বড় মনের অধিকারী একজন মানুষ।’