মেইন ম্যেনু

জঙ্গিদের আরেক আস্তানার সন্ধান, গ্রেনেড উদ্ধার

রাজধানীর গুলশানে হামলায় জড়িত জঙ্গিদের আরেকটি আস্তানার সন্ধান পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছে পুলিশের গোয়েন্দা শাখা (ডিবি)। ঢাকার পশ্চিম শেওড়াপাড়ার ওই বাসার মালিক নুরুল ইসলামকে আটক করা হয়েছে।

বাসাটি থেকে হাতে তৈরি একটি গ্রেনেড, কালো পোশাক এবং সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে ব্যবহৃত কিছু মালামাল জব্দ করেছে পুলিশ। হলি আর্টিজান বেকারি রেস্তোরাঁয় হামলার আগে সন্ত্রাসীরা ওই বাসায় অবস্থান করেছিল বলে পুলিশের কাছে তথ্য রয়েছে।

ভাড়াটিয়াদের সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহ না করায় এবং তথ্য পুলিশের কাছে গোপন করার অপরাধে বাড়িওয়ালাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

এদিকে, গুলশান হামলার সময় জঙ্গিদের ব্যবহৃত বাড়ির মালিক নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপকসহ তিনজনকে ৫৪ ধারায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পুলিশ পরিদর্শক হুমায়ুন কবির। তিনি জানান, দুপুরের পর তাঁদের আদালতে হাজির করে ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে আবেদন করা হবে।

গুলশানে হামলায় জড়িত জঙ্গিদের ঠিকানা ও তথ্য গোপন করে বাড়ি ভাড়া দেওয়ায় অভিযোগে ডিএমপির কাউন্টার টেররিজম ইউনিট গতকাল শনিবার রাজধানীর বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চালিয়ে তাঁদের আটক করে। আটক ব্যক্তিরা হলেন—নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের স্কুল অব হেলথ অ্যান্ড লাইফ সায়েন্সেসের ডিন গিয়াসউদ্দিন আহসান, তাঁর ভাগনে আলম চৌধুরী এবং ভবনের ব্যবস্থাপক মাহবুবুর রহমান ওরফে তুহিন। পুলিশ ওই বাসা থেকে বালুভর্তি কার্টন ও হামলাকারীদের পরিধেয় বস্ত্রসহ বিভিন্ন মালামাল জব্দ করে। বালুভর্তি এসব কার্টনে হামলায় ব্যবহৃত গ্রেনেড রাখা হয়েছিল বলে ধারণা করছে পুলিশ।

সম্প্রতি ঝিনাইদহ জেলা শহরের খোন্দকারপাড়ার একটি বাড়িতে গুলশান হামলায় অংশ নেওয়া জঙ্গি নিব্রাস ইসলাম আরো সাতজনের সঙ্গে ভাড়া ছিলেন বলে জানা গেছে। তবে পুলিশ বিষয়টি নিশ্চিত নয় বলে জানিয়েছে।