মেইন ম্যেনু

‘জঙ্গিবাদ আঞ্চলিক উন্নয়নের জন্য হুমকিস্বরূপ’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ বিশ্বের অন্যান্য অঞ্চলের মতো দক্ষিণ এশিয়াতেও বিস্তৃতি লাভ করেছে যা আঞ্চলিক শান্তি, নিরাপত্তা ও উন্নয়নের জন্য হুমকিস্বরূপ।

বুধবার দশম জাতীয় সংসদের একাদশতম অধিবেশনে প্রধানমন্ত্রীর জন্য নির্ধারিত প্রশ্নোত্তরে তিনি এসব কথা বলেন। সরকারদলীয় সংসদ সদস্য আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দক্ষিণ এশিয়াকে একটি দারিদ্র্যমুক্ত শান্তিপূর্ণ অঞ্চল হিসেবে গড়ে তুলতে আপনার সরকার গত মেয়াদ থেকে এই পর্যন্ত কী কী কূটনৈতিক পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে।

এর উত্তরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ বিশ্বের অন্যান্য অঞ্চলের মতো দক্ষিণ এশিয়ায়ও বিস্তৃতি লাভ করেছে যা আঞ্চলিক শান্তি, নিরাপত্তা ও উন্নয়নের জন্য হুমকিস্বরুপ। এরূপ বাস্তবতায়, নিরাপত্তা সহযোগিতার মাধ্যমে দক্ষিণ এশিয়াকে একটি শান্তিপূর্ণ অঞ্চল হিসেবে প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে এ অঞ্চলের দেশগুলোর একত্রে কাজ করতে পারে।’

আঞ্চলিক সংস্থা সার্ক ও বিমসটেকের আওতায় বিভিন্ন নিরাপত্তামূলক চুক্তি বা সমাঝোতা কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, ‘সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ নির্মূলের মাধ্যমে দক্ষিণ এশিয়াকে একটি শান্তিপূর্ণ অঞ্চল হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে এসবই গুরুপ্তপূর্ণ পদক্ষেপ।’

তিনি আরো বলেন, ‘দ্বিপাক্ষিকভাবে ভারতের সঙ্গে বিভিন্ন পর্যায়ের প্রাতিষ্ঠানিক ব্যবস্থাদির মাধ্যমে আমরা সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ নির্মূলে এবং নিরাপত্তা সহযোগিতার ক্ষেত্রে পরস্পর পরস্পরকে সহায়তা করছি। এরই ধারাবাহিকতায় ভারত এবং বাংলাদেশের মধ্যে বিভিন্ন পর্যায়ে আলোচনা ও কার্যক্রম অব্যাহত আছে।’

শেখ হাসিনা বলেনে, ‘আমাদের মহান মুক্তিযদ্ধের মূল চেতনা ছিল ক্ষুধা, দারিদ্র্য শোষণ ও বঞ্চনামুক্ত বাংলাদেশ গড়া। আমরা মুক্তিযুদ্ধের এ চেতনার বিস্তৃতি ঘটিয়ে বাংলাদেশের পাশাপাশি দক্ষিণ এশিয়াকেও একটি দারিদ্র্যমুক্ত ও শান্তিপূর্ণ অঞ্চলে পরিণত করতে কাজ করে যাচ্ছি।’

দারিদ্র্য দূরীকরণ যেহেতু শান্তি প্রতিষ্ঠার একটি অন্যতম পূর্ব শর্ত। তাই অর্থনৈতিকভাবে শক্তিশালী দক্ষিণ এশিয়া স্বাভাবিকভাবে শান্তিপূর্ণ দক্ষিণ এশিয়ায় রূপ নেবে বলেও প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন তিনি।