মেইন ম্যেনু

জঙ্গিরা রেহাই পাবে না

আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বিশ্বব্যাপী আজ একটি নতুন উপসর্গ দেখা দিয়েছে, সেটা হলো জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাস এবং মাদকাসক্তি। তিনি বলেন, বাংলাদেশে কোনো জঙ্গি থাকবে না। জঙ্গিরা রেহাই পাবে না। জঙ্গিরা কে কোথায় বাস করে সবাই তা খেয়াল রাখবেন। জঙ্গিদের বিরুদ্ধে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।

আমাদের ছেলে-মেয়েরা অত্যন্ত মেধাবী। শুধু দেশে নয়, যারা বিদেশে লেখাপড়া করছে তারাও মেধার দৃষ্টান্ত রাখছে। কাজেই এরা যেন কেউ বিপথে না যায়। কারও ছেলে-মেয়ে যেন জঙ্গি না হয়। এজন্য প্রতিটি পরিবারের মা-বাবাকে সাবধান থাকতে হবে।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৮তম জন্মদিন উপলক্ষে শনিবার বিকেলে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে তিনি এসব কথা বলেন।

আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও জাতীয় সংসদের উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ প্রমুখ।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশ স্বাধীন করেই বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, বাংলাদেশ হবে প্রাচ্যের সুইজারল্যান্ড। যে দেশে কোনো দারিদ্র্যতা থাকবে না, মানুষ খাদ্যে কষ্ট পাবে না। ভাত-কাপড়ের অভাব হবে না।

তিনি বলেন, আজ আমরা অনেক দূর এগিয়ে গেছি। ২০২০ সালে আমরা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী পালন করব। আর ২০২১ সালে যখন আমরা স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তি পালন করব, তখন এই বাংলাদেশ হবে সমৃদ্ধ ও মধ্যম আয়ের বাংলাদেশ। এভাবেই আমরা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের বাংলাদেশ গড়ে তুলব।

শেখ হাসিনা বলেন, বিশ্বের বহু স্বাধীন দেশ আছে যেখান থেকে শত বছরেও মিত্র বাহিনী ফেরত যায়নি। বাংলাদেশ পৃথিবীর একমাত্র দেশ, যেখান থেকে বঙ্গবন্ধুর অনুরোধে তিন মাসের মধ্যে ইন্দিরা গান্ধী মিত্র বাহিনীকে ফেরত নিয়েছিলেন।

এ ধরনের নজির বিশ্বের কোনো দেশে নেই। বঙ্গবন্ধুর মতো নেতৃত্ব ছিল বিধায় এ কাজ এত সহজে সম্ভব হয়েছে। এজন্য প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।