মেইন ম্যেনু

জঙ্গি অর্থায়ন : আদালতে তিন আইনজীবী

জঙ্গি অর্থায়নের অভিযোগে গ্রেপ্তার তিন আইনজীবীকে রিমান্ড শেষে আদালতে নিয়ে গেছে র‌্যাব। বুধবার সকাল সাড়ে নয়টার দিকে তাদের আদালতে নেয়া হয়।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী আবুল হাশেম জানান, আদালতে তারা ১৬৪ ধারায় তারা জবানবন্দী দিতে পারেন।

র‌্যাবের চট্টগ্রাম জোনের অধিনায়ক লে. কর্নেল মিফতাহ উদ্দিন আহমেদ বলেন, রিমান্ডে তিন আইনজীবী আমাদের কাছে ১৬১ ধারায় জবানবন্দী দিয়েছেন। আদালতে ১৬৪ ধারায় তারা জবানবন্দী দেবেন বলে আমাদের জানিয়েছেন।

এর আগে সোমবার হাটহাজারী থানায় দায়ের হওয়া একটি মামলায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ব্যারিস্টার শাকিলা ফারজানাকে দুই দিন এবং অ্যাডভোকেট হাসানুজ্জামান লিটন ও অ্যাডভোকেট মাহফুজ চৌধুরী বাপনের ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।

গত ১৮ আগস্ট জঙ্গি সংগঠন শহীদ হামজা ব্রিগেডকে অর্থ দেয়ার অভিযোগে ঢাকার ধানমন্ডি থেকে তিন আইনজীবীকে গ্রেপ্তার করা হয়। এরপর বাঁশখালী থানায় দায়ের হওয়া একটি মামলায় তাদের চারদিনের রিমান্ডে নেয় র‌্যাব। রিমান্ড শেষে তাদের ২৩ আগস্ট সকালে বাঁশখালীর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সাজ্জাদ হোসেনের আদালতে হাজির করা হয়। সেখানে পর্যায়ক্রমে তিন আইনজীবীর জবানবন্দি রেকর্ড করেন আদালত।

তিন আইনজীবীর মধ্যে ব্যারিস্টার শাকিলা ফারজানা বিএনপির কেন্দ্রীয় তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক এবং সাবেক হুইপ সৈয়দ ওয়াহিদুল আলমের মেয়ে। তিনি বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক। চট্টগ্রাম উত্তর জেলা বিএনপির সদস্য পদেও আছেন তিনি। অপর দু’জন হলেন সুপ্রিম কোর্টের অ্যাডভোকেট হাসানুজ্জামান লিটন এবং ঢাকা জজকোর্টের অ্যাডভোকেট মাহফুজ চৌধুরী বাপন।

র‌্যাবের দাবি, তিন আইনজীবী চার ধাপে মনিরুজ্জামান ডনসহ কয়েকজনের অ্যাকাউন্টে নগদে এক কোটি আট লাখ টাকা জমা দিয়েছেন। এর মধ্যে ব্যারিস্টার শাকিলা ফারজানা দিয়েছেন ৫২ লাখ টাকা। তিনি প্রথম ধাপে ২৫ লাখ ও পরবর্তী ধাপে ২৭ লাখ টাকা দিয়েছেন। হাসানুজ্জামান লিটন ৩১ লাখ টাকা এবং বাপন দিয়েছেন ২৫ লাখ টাকা।