মেইন ম্যেনু

সাজেদার জনসভায় বিশৃংখলা

জনতার হাতে গণপিটুনির শিকার সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান

ফরিদপুরের সালথায় সংসদ উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরীর জনসভা স্থলে আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ হয়েছে। এ সময় মঞ্চে সংসদ উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী নিজে উপস্থিত ছিলেন। অবস্থা বেগতিক দেখে তিনি দ্রুত বক্তব্য দিয়ে সভা শেষ করেন। এ ঘটনায় একাংশের গনপিটুনীতে আহত হয়েছে সালথা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেন। পরে তাকে পুলিশ আটক করে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় তীব্র উত্তেজনা বিরাজ করছে এলাকায়।

বুধবার বিকেলে সালথা উপজেলার ইউসুফদিয়া গ্রামে উপজেলা আওয়ামীলীগ আয়োজিত যোগদান অনুষ্ঠানে এ ঘটনা ঘটে। উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক ফারুকুজ্জামান ফকির মিয়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিএনপি সমর্থিত বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান ওয়াহিদুজ্জামানের নেতৃত্বে ২ শতাধিক কর্মী বিএনপি থেকে আওয়ামী লীগে যোগদান করেন। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, আওয়ামীলীগে যোগদান উপলক্ষে বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান ওয়াহিদুজ্জামান ২ শতাধিক কর্মী নিয়ে অনুষ্ঠানস্থলে পৌছান। এর পরপরই সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি দেলোয়ার হোসেনের ভাই আনোয়ার হোসেনের নেতৃত্বে কিছু লোকজন মিছিলসহকারে সভাস্থলে আসে। এসময় মঞ্চের কাছে দাড়ানোকে কেন্দ্র করে আনোয়ারের সমর্থকরা সমাবেশে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে এবং মঞ্চের দিকে কাঁদা মাটি ছুড়ে মারে। এনিয়ে একপর্যায়ে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া শুরু হয়। এসময় সাবেক চেয়ারম্যান দেলোয়ার মঞ্চ থেকে নেমে নিচে এলে উত্তেজিত জনতার হাতে গণপিটুনির শিকার হয়। পরে দেলোয়ারকে পুলিশ আটক করে নিয়ে যায়।

সভাস্থলে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি জাতীয় সংসদের উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী এমপি ও উপনেতার জৈষ্ঠ্যপুত্র নগরকান্দা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আয়মন আকবর চৌধুরী বাবলু। বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির করার পূর্বেই সংসদ উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরীর হাতে ফুলের তোড়া দিয়ে বিএনপি সমর্থিত বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান ওয়াহিদুজ্জামান ও তার ২ শতাধিক কর্মী আওয়ামীলীগে যোগদান সম্পন্ন করেন। সালথা থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই ওয়াহিদুজ্জামান বলেন, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেনকে আটকের পর ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। চিকিৎসা শেষে ব্যবস্থা নেয়া হবে।