মেইন ম্যেনু

জনবসতিতে পরিপূর্ণ এলাকা যেভাবে হলো ভূতের শহর !

নামিবিয়ার পরিত্যক্ত শহর, নাম কলম্যানস্কোপ। এখন লোকে একে বলে ভূতের শহর। প্রায় ৫০ বছর আগে যে শহর একটা সময় জনবসতিতে পরিপূর্ণ ছিল, হীরার খনিজীবীর শহর গড়ে তুলেছিলেন। কারণ ছিল একটাই, মনে করা হয়েছিল এরই পাশে আছে হীরার খনি।

প্রায় সাতশ’ পরিবারের বসবাস ছিল এই শহরে। কিন্তু সেভাবে কিছুই না মেলায় হতাশ হয়ে কলম্যানস্কোপ শহর ছাড়েন খনিজীবীরা। তারপর থেকেই পুরো শুনশান। পড়ে থাকে শুধু ঘরবাড়ি, হাসপাতাল, ভগ্ন বাজার-দোকান।

বছর পঞ্চাশ পর এই শহর এখন বিশ্বের অ্যাডভেঞ্চার প্রিয় পর্যটকদের সেরা আকর্ষণ। যতই হোক ভূতের শহর বলে কথা। তবে আফ্রিকার দক্ষিণপশ্চিম প্রান্তের নামিবিয়ার এই ভূতড়ে শহর ধীরে ধীরে চলে যাচ্ছে বালির তলায়।

ঝড়ে শহরের বেশ কয়েকটি বাড়ির প্রায় অর্ধেক চলে গেছে বালির নিচে। আসলে শোনা গিয়েছিল ১৯০০ সালে নাকি এই শহরের বালির তলা থেকে পাওয়া গিয়েছিল এক বহুমূল্য দুর্লভ হীরা। এরপরই একদল লোক এসে বসবাস শুরু করে কলম্যানস্কোপে।

গুজব ছড়িয়ে পড়ে কলম্যানস্কোপের বালির তলায় নাকি আছে একটা হীরার খনি। গুজব ছড়িয়ে পড়ে বিদ্যুতের গতিতে। একের পর এক পরিবারে হীরার মোহে ভিড় জমান, বসবাস শুরু করেন এই শহরে।

বালির ওপর গড়ে ওঠে অত্যাধুনিক এক শহর। তবে ৫০ বছর পর মোহ ভাঙে। হীরার খনি আরো দক্ষিণে সরে গেছে বলে পাততাড়ি গুটিয়ে পালায় সবাই।

এখন এই শহরে হাতেগোনা কয়েকজন পর্যটক ছাড়া আর প্রাণের অস্তিত্ব নেই। বালির ঝড়ে শোঁ শোঁ আওয়াজ ভূতের শহরকে আরো ভৌতিক করে তোলে। সূত্র : জিনিউজ