মেইন ম্যেনু

জবির ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগে ফলাফল আটকে রাখার অভিযোগ, শিক্ষকদের হট্টগোল

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের চেয়ারম্যান ড. মোহাম্মদ আবদুল অদুদের বিরুদ্ধে মাস্টার্সের ফলাফল আটকে রাখার অভিযোগ পাওয়া গেছে। বৃহস্পতিবার বিষয়টি নিয়ে কথা বলতে গেলে অন্যন্য শিক্ষকদের সাথে বাক-বিতন্ডায় জড়িয়ে পড়েন চেয়ারম্যান। এদিকে ফলাফল আটকে রেখে শিক্ষার্থীদের জিম্মি করে অতিরিক্ত টাকা আদায়ের অভিযোগ তুলেছেন ঐ বিভাগের শিক্ষার্থীরা।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ২০১২-১৩ শিক্ষাবর্ষের মাস্টার্স চুড়ান্ত পরীক্ষা ১৯ এপ্রিল শেষ হয়। আড়াই মাসে ফলাফল প্রকাশ করা হয়নি। এর কারণ হিসেবে পরীক্ষা কমিটির আহবায়ক এবং বিভাগীয় চেয়ারম্যান ড. মোহাম্মদ আবদুল অদুদের অদক্ষতাকে দায়ী করেছেন বিভাগের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা।

বিষয়টি নিয়ে বৃহস্পতিবার দুপুরে চেয়ারম্যানের কাছে ফলাফল প্রকাশ না করার কারণ জানতে চান বিভাগের অন্যন্য শিক্ষকরা। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে শিক্ষকদের সাথে খারাপ ব্যবহার করেন চেয়ারম্যান। এসময় চেয়ারম্যানের কক্ষ থেকে হট্টগোলের শব্দ পাওয়া যায়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক শিক্ষক বলেন, পরীক্ষা কমিটির অন্যন্য শিক্ষকরা দেড় মাস আগে ফলাফলের সব কার্যক্রম শেষ করে চেয়ারম্যানের কাছে জমা দিয়েছেন। কিন্তু তার অদক্ষতার জন্য ফলাফল প্রকাশে দেরি হচ্ছে। তার একটা স্বাক্ষর দিতে এক সপ্তাহ লাগে। তিনি যেসব পেপার প্রস্তুত করেছেন তার সবগুলোতেই কিছুনা কিছু ভুল পাওয়া গেছে। বারবার ভুল করার জন্যই ফলাফল প্রকাশে দেরি হচ্ছে। মাস্টার্সের এক শিক্ষার্থী বলেন, এ পর্যন্ত কমপক্ষে ১৫ বার ফলাফল প্রকাশের তারিখ ঘোষণা করেও ফলাফল দেয়া হয়নি। গত মাসে বিদায় অনুষ্ঠান করার কথা বলে প্রত্যেক শিক্ষার্থীর কাছ থেকে এক হাজার টাকা আদায় করা হয়েছে। চেয়ারম্যান বলেছেন, যে টাকা দেবেনা তার ফলাফল প্রকাশ করা হবেনা।

এ বিষয়ে ড. মোহাম্মদ আবদুল অদুদ বলেন, কারিগরি ত্রুটির কারণে ফলাফল প্রকাশে দেরি হচ্ছে। শিক্ষকদের মধ্যে হট্টগোলের বিষয়টি তিনি অস্বীকার করেন।



« (পূর্বের সংবাদ)