মেইন ম্যেনু

জাতিকে কুরআনের আলো ছড়িয়ে দিতে সকলকে একসাথে কাজ করতে হবে

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর আমীর মুফতী সৈয়দ মোহাম্মদ রেজাউল করীম পীর সাহেব চরমোনাই বলেছেন, নৈতিকতা বিবর্জিত জাতিকে কুরআনের আলো ছড়িয়ে দিয়ে সৎপথে ফিরিয়ে আনতে হবে। কুরআনী শিক্ষা না থাকায় সমাজে ঐশীর মতো নৈতিকতাহীন মেয়ে সৃষ্টি হচ্ছে, ফলে সন্তানের হাতে বাবা-মাকে খুন হতে হয়অপরদিকে মা কর্তৃকও শিশু হত্যার মত ঘটনা আমাদের বিবেককে নাড়িয়ে দিয়েছে।

৬৮ হাজার গ্রামে ৬৮ হাজার কুরআনী মক্তব প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে কুরআন থেকে দূরে সরা জাতিকে কুরআনের পথে ফিরিয়ে আনতে হবে। এ জন্য প্রয়োজন শিক্ষার সকলস্তরে কুরআনী শিক্ষা বাধ্যতামূলক সিলেবাসে অন্তর্ভূক্ত করা। আর বাংলাদেশ কুরআন শিক্ষা বোর্ড সারাদেশে এ কাজটিই কাজ করে যাচ্ছে। কুরআনের আলো তথা কুরআনের শিক্ষা না থাকায় দেশে নৈতিকতার চরম বিপর্যয় ঘটছে। এ থেকে মুক্তি পেতে কুরআনের আলোয় আলোকিত হতে হবে।

গতকাল সকালে বাংলাদেশ কুরআন শিক্ষা বোর্ড ঢাকা মহানগর আয়োজিত কৃতি শিক্ষার্থী সংবর্ধনা ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন। বিশিষ্ট সমাজসেবক আলহাজ্ব মোহাম্মদ মোতাহার হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন কুরআন শিক্ষা বোর্ডের নির্বাহী সভাপতি মুফতী সৈয়দ নূরুল করীম, সচিব আল্লামা নূরুল হুদা ফয়েজী, শায়খ মিজানুর রহমান (রিয়াদ,সৌদী)।

অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন শায়খুল হাদীস মাওলানা মকবুল হোসাইন, মাওলানা আব্দুস সাত্তার হামিদী, প্রিন্সিপাল মাওলানা আবদুল হক, বোর্ডের ঢাকা মহানগর সভাপতি হাফেজ মাওলানা খলিলুর রহমান এবং সেক্রেটারী বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল কাশেম, ৫৪ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর হাজী মোঃ মাসুদ প্রমুখ।

পীর সাহেব চরমোনাই আরও বলেন, শিশুদেরকে কুরআনী শিক্ষা থেকে দূরে রাখতে কতিপয় এনজিও কাজ করে যাচ্ছে। মুসলমানদেরকে কুরআন শিখাতে কুরআন শিক্ষা বোর্ড কাজ করে যাচ্ছে। এ বোর্ডকে সম্মিলিতভাবে সহযোগিতা করতে হবে।

পরে কৃতি ছাত্রদের সংবর্ধনা ও পুরস্কার বিতরণ করেন প্রধান অতিথি হযরত পীর সাহেব চরমোনাই।