মেইন ম্যেনু

জাতীয় ঐক্যের আহ্বান প্রত্যাখ্যান করছে সরকার : বিএনপি

জঙ্গিবাদ দমনে সরকার বিএনপির জাতীয় ঐক্যের আহ্বানকে শুধু নাখোশই করেনি প্রত্যাখ্যা করছে বলে মন্তব্য করেছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। বুধবার রাজধানীর সেগুনবাগিচায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি সাগর-রুনী মিলনায়তনে এক আর্থিক সহায়তা অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে এখন মানবাধিকার রাষ্ট্রের বাইরে। দেশ ফ্যাসিবাদি রাষ্ট্রে পরিণত হয়েছে। সত্যিকার অর্থে দেশে রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস চলছে।

দেশে গণতন্ত্র নেই উল্লেখ করে বিএনপির মহাসচিব বলেন, গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে, জাতীয় ঐক্য গড়ে তুলতে হবে।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘২০১০ সাল থেকে হত্যাকাণ্ড শুরু হয়েছে। আমরা পূর্বেই বলেছি জোর করে নিখোঁজ করে দেওয়া মানবতাবিরোধী অপরাধ। আজকে সভ্য পৃথিবীতে সকলের চোখের সামনে ঘটনাগুলো ঘটছে। অথচ বাংলাদেশ ও বিশ্ব বিবেক আজকে নিশ্চুপ।’

তিনি আরো বলেন, ‘গত কয়েক বছরে বিএনপির নেতাকর্মীদের মধ্য ১ হাজার খুন, ৫০০ গুম, হাজারের উপরে পঙ্গু, লাখ লাখ মামলা ও হাজার হাজার নেতাকর্মী জেলে আছেন। এখন দেশে আইনের শাসন নেই। গণতন্ত্রের কথা মুখে বললেও গণতন্ত্রের লেশমাত্রও নেই। গণতন্ত্রকে কবরে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে।’

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘উগ্রবাদ-জঙ্গিবাদ সমস্যা সমাধানে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া নিঃস্বার্থভাবে জাতীয় ঐক্যের ডাক দিয়েছেন। কিন্তু সরকার তা কর্ণপাত করেনি, প্রত্যাখ্যান করছে। জাতীয় ঐক্য হলে সরকার তাতে সুবিধা পাবে না। তাই তারা সব কিছুকে রাজনৈতিকভাবে দেখছে। রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস দিয়ে জঙ্গিবাদ বন্ধ হবে না। সকলে মিলে ঐক্য গড়ে তুলে জঙ্গিবাদ প্রতিরোধ করতে হবে।’

গণতন্ত্রের মোড়কে একদলীয় শাসন চলছে অভিযোগ করে ফখরুল বলেন, ‘একজন মানুষকে তুলে নেওয়া হলে এর জবাব নেই। এর জবাব কে দেবে? রাষ্ট্রকে এর জবাব দিতে হবে। রাষ্ট্র এখন একটি দলের তল্পিবাহক হিসেবে কাজ করছে।’

‘বিগত আন্দোলন-সংগ্রামে আওয়ামী সন্ত্রাসী ও বাকশালী পুলিশ কর্তৃক গুম, খুন ও নিগ্রহের শিকার’ পাঁচ পরিবারকে আর্থিক সহায়তা প্রদানে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে জাতীয়তাবাদী হেল্প সেল নামক একটি সংগঠন।

সংগঠনের সিনিয়ির সদস্য ইঞ্জিনিয়ার বেলাল হোসেনের সভাপতিত্বে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শাহজাহান, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, আইন বিষয়ক সম্পাদক ব্যারিস্টার কায়সার কামাল, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক শামসুজ্জামান খান, সহ-দফতর সম্পাদক তাইফুল ইসলাম টিপু, ছাত্রদল সভাপতি রাজিব আহসান, সহ-সভাপতি নাজমুল হাসান প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। এছাড়া ছাত্রদল নেতা মামুন খান অনুষ্ঠানের সঞ্চালনার দায়িত্ব পালন করেন।