মেইন ম্যেনু

জানেন, জিন্সের মতো এমন ৫টি পোশাক পরলে কি ক্ষতি হয়?

শরীরের সঙ্গে লেপ্টে থাকা পোশাকগুলোতে ত্বকের ঘাম এবং তেল লেগে যায়। যার ফলে চামড়ায় ফাংগাল ইনফেকশনের সম্ভাবনা বৃদ্ধি পায়। গ্রীষ্মপ্রধান দেশে গরমকালে কখনোই একটা লেগিংগস একদিনের বেশি না ধুয়ে পরা উচিত নয়।
এমন পোশাক পরলেই ্পিদ।

আপনি এসব পোশাক পরছেন একটা স্টাইল স্টেটমেন্ট তৈরি করবেন বলে। কিন্তু আপনার অজান্তেই আপনার শরীরের ক্ষতি করে চলেছে। জেনে নিন, এমন কয়েকটা পোশাকের কথা যা আপনার শরীরের পক্ষে ভীষণ ক্ষতিকর—

১. স্কিন টাইট জিন্স : অতিরিক্ত টাইট জিন্স পরলে পায়ের নিম্নাংশে রক্ত চলাচল কমে যায়। এর ফলে মাংসপেশি ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে, পা ফুলে যেতে পারে কিংবা আসতে পারে অসাড়ত্ব। সম্প্রতি ‘জার্নাল অফ নিউরোলজি, নিউরোসার্জারি অ্যান্ড সাইকিয়াট্রি’তে এক মহিলার খবর প্রকাশিত হয়েছে, যিনি স্কিন টাইট জিন্স পরা অবস্থায় বারবার ওঠাবসা করার ফলে তার পায়ের নিম্নাংশ এতটাই ক্ষতিগ্রস্ত হয় যে, তাকে চার দিন হাসপাতালে কাটাতে হয়।

২. গত রাতে পরিহিত পায়জামা বা অন্য কোনো রাত্রিযাপন : অনেকেই রাতে যে পোশাক পরে ঘুমাতে যান সকালে উঠে সেটা চেঞ্জ করেন না। এটা খুব অস্বাস্থ্যকর অভ্যাস। ডাক্তারেরা জানাচ্ছেন, রাতে যে পোশাক পরে ঘুমানো হয় সেটা এক রাতে ময়লা হয়ে যায়। সকালে সেই ময়লা পোশাক মূত্রনালীর সংস্পর্শে এলে শরীরে ব্যাকটেরিয়া প্রবেশ করার সম্ভাবনা থাকে। কাজেই সকালে উঠে রাতের পোশাক বদলে নেয়াটাই বুদ্ধিমানের কাজ।

৩. লেগিংগস : শরীরের সঙ্গে লেপ্টে থাকা এ পোশাকে ত্বকের ঘাম এবং তেল লেগে যায়। যার ফলে চামড়ায় ফাংগাল ইনফেকশনের সম্ভাবনা বৃদ্ধি পায়। ভারতের মতো গ্রীষ্মপ্রধান দেশে গরমকালে কখনোই একটা লেগিংগস একদিনের বেশি না ধুয়ে পরা উচিত নয়।

৪. রঙিন অন্তর্বাস : অন্তর্বাসকে রঙ করার জন্য ডাই ব্যবহার করা হয়। এই ডাইগুলো শরীরের গোপন অঙ্গের সংস্পর্শে এসে ওইসব অঙ্গে ইনফেকশনের সম্ভাবনা বৃদ্ধি পায়। অন্তর্বাস যদি সিন্থেটিক উপাদানে তৈরি হয় তবে বিপদের সম্ভাবনা বাড়ে।

৫. হাই হিল : ইন্টারন্যাশনাল জার্নাল অফ ক্লিনিকাল প্র্যাকটিস’-এ প্রকাশিত একটি সমীক্ষা-রিপোর্ট থেকে জানা যাচ্ছে, সপ্তাহে বার দু’য়েক করে টানা দু’বছর হাই হিল জুতা পরলেই গোড়ালির বড় রকমের ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা থেকে যায়। হাই হিল জুতা পরলে গোড়ালির মাংসপেশিতে ভারসাম্যের অভাব ঘটে। এতে ওই অংশের মাংসপেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়।