মেইন ম্যেনু

‘জামায়াতের সঙ্গে বিএনপির ভোটের জোট’

জামায়াতে ইসলামীর সঙ্গে বিএনপির আদর্শিক নয়, ভোট ও রাজনৈতিক জোট হয়েছে- বলে জানিয়েছেন দলটির মুখপাত্র ড. আসাদুজ্জামান রিপন।

নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে শনিবার বিকেলে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

আসাদুজ্জামান রিপন বলেন, জামায়াত তাদের রাজনীতি করে। আর বিএনপি জিয়াউর রহমানের আদর্শ ও দর্শনের ওপর ভিত্তি করে চলে। এই আদর্শ থেকে বের হওয়ার সুযোগ নেই।

বিএনপি অতিমাত্রায় জামায়াত নির্ভর হয়ে গেছে- দাবি করে দলটির প্রতিষ্ঠাতা মহাসচিব বদরুদ্দোজা চৌধুরীর জামায়াতের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করতে পরামর্শ দেওয়ার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে বিএনপি থেকে প্রতিক্রিয়া এলো।

দলের প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের আদর্শ ছেড়ে বিএনপি অতিমাত্রায় জামায়াত নির্ভর হয়ে গেছে- দাবি করে প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি এবং বর্তমানে বিকল্পধারা বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরী দলটিকে জামায়াতের সঙ্গে জোট ছিন্ন করার পরামর্শ দেন।

তিনি বলেন, বিএনপিকে বাঁচতে হলে জিয়াউর রহমানের আদর্শ ফিরিয়ে আনতে হবে এবং জামায়াতের সঙ্গ ছাড়তে হবে। এজন্য দলটির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে দায়িত্ব নেওয়ার পরামর্শ দেন প্রাক্তন বিএনপির এই নেতা।

এর প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে বিএনপির মুখপাত্র আসাদুজ্জামান রিপন বলেন, ব্যক্তিক দৃষ্টিভঙ্গি থেকে যে কেউ যে কোনো ধরনের কথা বলতে পারেন। এটা তার ব্যক্তিগত মূল্যায়ন। বিএনপির সঙ্গে শুধু জামায়াত নয়, সাম্যবাদী দল, ন্যাপ ভাসানীও আছে। তার মানে এই নয় যে, আমরা কমিউনিষ্ট হয়ে যাচ্ছি। এটি ভোটের ও রাজনৈতিক জোট।

বর্তমান সরকারের শাসনামলে গত সাত বছরে দেশের আর্থিক খাতে বিশৃঙ্খলা ও নৈরাজ্য চলছে- দাবি করে রিপন বলেন, ‘অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত এই পরিস্থিতি সামাল দিতে ব্যর্থ হয়েছেন। তার প্রিয় রাবিশ, স্টুপিড শব্দের সঙ্গে আমরা আরো একটি শব্দ যোগ করতে চাই, সেটি হচ্ছে ভোগাস। কারণ তিনি যে কাজ করেন, তার সবই ভোগাস।’

সরকার ঋণ নিয়ে দেশের রাষ্ট্রায়াত খাতগুলোর আমানত ও মূলধন ফোকলা করে দিয়েছে দাবি করে বিএনপির এই নেতা বলেন, রাষ্ট্রায়াত্ত ব্যাংকগুলো কখনো এই পরিস্থিতিতে পড়েনি। বিএনপির আমলে ব্যাংকগুলো লাভজনক ছিল।

তিনি বলেন, ব্যাংকিং খাতে হরিলুট হলেও অর্থমন্ত্রী এগুলো না দেখে চোখ বন্ধ করে থাকেন। কিন্তু এসব দেখার দায়িত্ব তার। সরকারের আশীর্বাদপুষ্ট দুর্নীতিবাজ ও ব্যর্থ ব্যবস্থাপনা পরিচালকদের রাষ্ট্রায়াত্ত ব্যাংকে পুনঃনিয়োগ দেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

দেশে জবাবদিহিতা না থাকা এবং শক্তিশালী বিরোধীদলের পরিবর্তে ‘গৃহপালিত ও পাতানো’ বিরোধীদল থাকার কারণে সরকার ইচ্ছেমতো কাজ করছে বলে অভিযোগ করেন বিএনপির এই মুখপাত্র। তিনি বলেন, এই অবস্থা দেশের গণতন্ত্রের জন্য অশনিসংকেত।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুস সালাম আজাদ, সহ-দপ্তর সম্পাদক আবদুল লতিফ জনি, আসাদুল করিম শাহীন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।