মেইন ম্যেনু

জাহাজ কেটে বাইক বানিয়েছে বাজাজ

ভারতের বিখ্যাত বাইক নির্মাতা প্রতিষ্ঠান নতুন মডেলের ১৫০ সিসির বাইক বাজাজ ভি বাণিজ্যিকভাবে উৎপাদন করার পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। এক মাসের মধ্যেই উৎপাদন প্রক্রিয়া শুরু হবে এবং মার্চ মাস থেকে ভারতের বাজারে পাওয়া যাবে নতুন ডিজাইনের এই বাইকটি।

বাইকটির বৈশিষ্ট্য হচ্ছে এর ধাতব অংশটি নেয়া হয়েছে ভারতের ইন্সভিকরান্ট নামে বিমানবাহী জাহাজ থেকে।

বাজাজ মোটরসাইকেলের প্রেসিডেন্ট এরিক ভাস বলেন, ‘২০১৪ সালে ইন্সভিকরান্টের কাজ সমাপ্তির পর আমরা চিন্তা করলাম আমরা ইন্সভিকরান্ট নিয়ে কাজ করবো। ইন্সভিকরান্ট হলো ভারতের সেনাবাহিনীর সমরশক্তির একটি নিদর্শন এবং বাজাজ ভারতীয় জাতিকে মনে করিয়ে দিতে চায় এই গৌরবময় ইতিহাস।’

নতুন এই বাইকটির ট্যাঙ্কে ব্যবহার করা হয়েছে ইন্সভিকরান্টের লোগো সম্বলিত স্টিকার। যেখানে বলা হয়েছে, ‘ইন্সভিকরান্টের অপরাজেয় ধাতব দিয়ে তৈরি।’

বাজাজ অটোর নির্বাহী পরিচালক রাজিব বাজাজ বলেন, ‘বাজাজ ইতোমধ্যে ভারতের বাইক বাজারের অর্ধেক দখল করেছে। ১২৫ সিসির বাইকগুলোকে আমরা সাধারণ মানুষের চালানোর উপযোগী করে তৈরি করেছি। এবার আমরা ভারতীয় ইতিহাসের সাথে সম্পৃক্ত বাইক তৈরির পরিকল্পনা করেছি।’

প্রতি মাসে ২০ হাজার ভি মডেল উৎপাদন করতে সক্ষম বাজাজ বাইক নির্মাতা প্রতিষ্ঠানটি। যদিও এই উৎপাদন ক্ষমতা বাইকের চাহিদার ওপর নির্ভর করে।

১৫০ সিসির এই বাইকটি সিঙ্গেল সিলিন্ডারের ৪ স্ট্রোকের ২ ভাল্বের এয়ার কুলড ডিটিএস-আই ইঞ্জিন। ১১.৭৬ হর্সপাওয়ার (বিএইচপি) ৭ হাজার ৫০০ আরপিএম গতির সঙ্গে এই বাইকের টর্ক ১৩ এনএম/ ৫ হাজার ৫০০ আরপিএম। বাইকের সামনের চাকায় ডিস্ক ব্রেক এবং পেছনের চাকায় ড্রাম ব্রেক ব্যবহার করা হয়েছে। এর বোর ও স্ট্রোক যথাক্রমে ৫৬ ও ৫৮.৮ মিলিমিটার।

বাইকটির দুটি চাকাতেই অ্যালয় হুইল রয়েছে এবং এর টায়ারগুলো টিউবলেস। বসার জন্য বাইকের পেছনের সিট যথেষ্ট আরামদায়ক। বাইকটির ফুয়েল ট্যাঙ্ক ক্যাপাসিটি ১৩ লিটার যার মধ্যে রিজার্ভ ট্যাঙ্ক রয়েছে ১.৭ লিটার।

বাজাজ ভি বাইকটির মাইলেজ ৪০-৫০ কিলোমিটার। ওজন ১৩৫.৫ কেজি। চাকায় রয়েছে ১৬ ইঞ্চির টায়ার।

অ্যাবনি ব্ল্যাক এবং পার্ল হোয়াইট এ দুটি রঙে ভারতের বাইক বাজারে বাইকটি পাওয়া যাবে।
বাইকটির মূল্য ৬০ হাজার থেকে ৭০ হাজার রুপির মধ্যে। ভ্যাট ও ট্যাক্স ছাড়া বাংলাদেশি টাকায় হবে ৭২ হাজার টাকা থেকে ৮৪ হাজার টাকা।



« (পূর্বের সংবাদ)