মেইন ম্যেনু

জায়গা স্বল্পতা : ৯ জঙ্গির লাশ কুর্মিটোলায়

মর্গে ফ্রিজ খালি না থাকায় গাজীপুরে পুলিশ ও র‌্যাবের অভিযানে নিহত নয় জঙ্গির লাশ ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে রাখা যায়নি।

সোমবার রাত সাড়ে ১১টায় এসব লাশ কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ঢামেক হাসপাতালের ক্যাম্প উপপরিদর্শক বাচ্চু মিয়া এ তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি জানান, সোমবার রাতে নয় জঙ্গির লাশ গাজীপুর থেকে ঢামেকে পাঠানো হয়। কিন্তু জায়গা স্বল্পতার কারণে তাদের এখানে রাখা যায়নি। তাই কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

জায়গা স্বল্পতা বলতে কী বোঝানো হয়েছে, জানতে চাইলে বাচ্চু মিয়া বলেন, ‘মর্গে সব লাশ শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত কক্ষে এবং ফ্রিজে রাখা হয়। কিন্তু বর্তমানে ঢামেক হাসপাতালে এতগুলো ফ্রিজ ফাঁকা নেই।’

নিহত জঙ্গিদের লাশ কড়া নিরাপত্তায় শাহবাগ থানার দুই উপপরিদর্শক নিয়ে গেছেন বলেও জানান তিনি।

এদিকে পুলিশের অভিযানে নিহত সাত জঙ্গির মধ্যে নিও জেএমবির ঢাকা বিভাগের অপারেশন কমান্ডার আকাশ ছাড়া আর কারো পরিচয় এখনো জানা যায়নি।

অন্যদিকে র‌্যাবের অভিযানে নিহত দুই জঙ্গি হলেন- তৌহিদুল ও রাশেদুল। তাদের বাড়ি নরসিংদী জেলায়।

প্রসঙ্গত, শনিবার দেশের চারটি স্থানে জঙ্গি অস্তানায় পৃথকভাবে অভিযান চালায় র‌্যাব, পুলিশ ও পুলিশের বিশেষ বাহিনী সোয়াত। এসব অভিযানে এক জঙ্গির অর্থদাতাসহ ১২ জন নিহত হয়। এর মধ্যে গাজীপুর জেলার দুই স্থানে যথাক্রমে সাত ও দুজন, টাঙ্গাইলে দুজন এবং সাভারের আশুলিয়ায় একজন জঙ্গি নিহত হয়।

সাভারে নিহত জঙ্গিদের অর্থদাতা আব্দুর রহমানের লাশ রোববার ঢামেক হাসপাতালে পাঠানো হয়।