মেইন ম্যেনু

জীবন সংগ্রামে পানি বিক্রয়ে স্বাবলম্বী তৈয়ুব

চট্টগ্রাম জেলার পটিয়া উপজেলার লাকারা গ্রামের হত দরিদ্র পরিবারের ছেলে তৈয়ুব আলী জীবন যুদ্ধে পানি বিক্রয় করে এখন স্বাবলম্বী। পটিয়া লাকারা গ্রামের ইয়াকুব আলী ও মাজানা খাতুনের বড় ছেলে তৈয়ুব আলী। গ্রামের ছেলে তৈয়ুব, পরিবারের সবার বড় হওয়ায় পরিবারের চাহিদা মেটানোর জন্য জীবন যুদ্ধের কঠিন বাস্তবাতাকে জয়ী করার প্রত্যয় নিয়ে ৫ বছর আগে গ্রামের সকলকে ছেড়ে চট্টগ্রাম শহরে ছুটে আসে একটু সুখের আশায়।

নগরীর এদিক-সেদিক, বড় ভাই-ছোট ভাই সব ভাইয়ের দারস্থ হইয়েও চাকুরী মেলেনি পুড়া কপালে। গ্রামের হত দরিদ্র পরিবাররের সদস্যদের একটু সুখের আশায় নগরীতে ভ্যান দিয়ে নেমে পড়ে পানি বিক্রয়ের ক্ষুদ্র ব্যবসায়। প্রথমত ব্যবসায় লাভের পরিমাণ কমসহ পানির গ্রাহক না থাকায় মনে নেমে আশে অবারো আমাবর্ষা। তবে জীবন যুদ্ধে পিছপা হয়নি তৈয়ুব। কঠিন জীবন যুদ্ধে ৫ বছর সংগ্রাম করতে করতে পানির ব্যবসা করে এখন লাকারা গ্রামে তৈয়ুব স্বাবলম্বী। ব্যবসার বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে তৈয়ুব বলেন, নগরীর রাজাপুর লাইন প্রতি ভ্যান পানি ত্রিশ টাকা হারে ক্রয় করে। গ্রাহকের বাড়ী, অফিস, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে পৌছে দিয়ে ১ ভ্যান পানি ১০০ টাকায় বিক্রয় করে। ঐ ভ্যানে ২৩০ লিটার পানির ধারণ ক্ষমতা রয়েছে।

নগরীতে পানি সাপ্লায়ের বিষয়ে তৈয়ুব বলেন, নগরীর চেরাগী পাহাড়, কদম মোবারক, হেমসেন লাইন, সততা ক্লাব, বাংলা কলেজ, আন্দরকিল্লা, চকবাজার, দিদার মার্কেট, বক্সির হাট এলাকাসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে পানি বিক্রয় করে থাকি। পানি পরিবহন ও বিক্রয়ের কাজে হরদম একজন শ্রমিক নিয়োজিত থাকে। প্রতি ভ্যান ৩০ টাকায় ক্রয় করে বিভিন্ন জায়গায় বা গ্রহকের কাছে পৌছে দিয়ে ১০০ টাকা হারে বিক্রয় করে তৈয়ুব। প্রতিদিন ৫-১০ ভ্যান গাড়ী পানি গ্রাহকের কাছে বিক্রয় করে। তিনি পানি বিক্রয় করে প্রতিদিন ৫শত থেকে ৬শত টাকা আয় করে। তৈয়ুবের সংসার জীবনে পিতা-মাতা, তিন ভাই-বোন রয়েছে। বর্তমানে তৈয়ুবের পরিবার পটিয়া গ্রামের বাড়ীতে বসাবাস করে। নগরীর রাজাপুকুর লাইনে তৈয়ুব ব্যাচেলর বাসায় বসাবাস করে।

স্থানীয় কয়েকজন গ্রাহক তৈয়ুবের জীবন সংগ্রামে আরো অগ্রগতি ও পারিশ্রমের মাধ্যমে মানব সেবার কাজকে সাধুবাদ জানান। জীবন যুদ্ধে জয়ী হয়ে বিয়ে নামক নতুন সংগ্রামে নামার স্বপ্নে এখন বিভোর তৈয়ুব আলী।