মেইন ম্যেনু

জীবিত অবস্থায় কবরে দু’দিন, অবশেষে উদ্ধার!

এ যেন এক রূপকথার গল্প। অসহায় অবস্থা থেকে উদ্ধারের রূপকথার গল্প। তবে রূপকথার গল্পটি ঘটেছে রাশিয়ায়। তাও আবার একটি কুকুরকে নিয়ে। জীবন্ত অবস্থায় কবর থেকে দু’দিন পরে উদ্বার করা হয় থাকে তাও আবার জীবিত।

রাশিয়ার ভোরোনেজ বেলকা শহরে ফুটপাথ দিয়ে হেঁটে যাচ্ছিলেন ভাদিম রুস্তম। হঠাত্ই কুকুরের কান্নার আওয়াজ শুনতে পান তিনি। অবাক ভাদিম বোঝার চেষ্টা করেন কোথা থেকে ভেসে আসছে সেই কান্না! প্রথমে চারিদিক খুঁজেও কিছু বুঝতে পারেননি। কিন্তু তার মনে হতে থাকে, কুকুরের ওই কান্না আসছে মাটির তলা থেকে।

হয়তো মাটির নীচে আটকে পড়েছে কোনও কুকুর! তিনি ব্যস্ত হয়ে সাহায্যের জন্য হাউসিং অথরিটির সঙ্গে যোগাযোগ করেন। কিন্তু তারা সাহায্য করেননি। ফলে নিজেই ফুটপাথ থেকে ইঁট তোলার কাজ শুরু করেন ভাদিম। কিছুক্ষণ পর সিঙ্কহোলের ভেতর থেকে একটি গর্ভবতী কুকুরকে উদ্ধার করেন তিনি।

কিন্তু সিঙ্কহোলে কী ভাবে আটকে পড়েছিল সারমেয়টি?

জানা গিয়েছে, দিন কয়েক আগে রাস্তার খোলা সিঙ্কহোলে আশ্রয় নিয়েছিল কুকুরটি। তিন সপ্তাহ ধরে খোলা পড়েছিল সেটি। ফলে সেখানে ঢুকতে বা বেরোতে কোনও অসুবিধেই হচ্ছিল না কুকরটির। কিন্তু বিপদ আসে তার পরই। গত ১৮ সেপ্টেম্বর হাউসিং অথরিটি ওই সিঙ্কহোলটির মুখ বন্ধ করে দেয়। তারা জানতই না ভিতরে পড়ে গিয়েছে একটি কুকুর।

এ ভাবেই কেটে যায় আরও দু’দিন। ভেতরে খাবার না পেয়ে আরও কাহিল হয়ে পড়ে কুকুরটি। সে সময় ওই পথ দিয়ে ভাদিম রুস্তম না গেলে কী হত বলা যায় না। তিনিই অবশেষে সিঙ্কহোল থেকে বের করে আনেন ওই কুকুরটিকে। সেই ভিডিওটি গত ২৪ সেপ্টেম্বর নিজের ফেসবুকে শেয়ার করেছেন ভাদিম। স্বভাবতই বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে কুকুরটির উদ্ধার হওয়ার কাহিনি দেখে আপ্লুত সকলে। ইতিমধ্যেই ২০ লক্ষ মানুষ লাইক করেছেন সেটি।