মেইন ম্যেনু

জুতোয় যায় চেনা

যতই ফোস্কা পড়ুক, যতই খুঁড়িয়ে হাঁটা সঙ্গী হোক যে কোনও উত্সব বা আনন্দের দিনে, জুতো না হলে সব সাজই অনেকটাই ফিকে। কিন্তু জুতো তো শুধু কিনলেই হয় না। পোশাক, সময়, সব কিছুর সঙ্গেই মাননসই হওয়াটা ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ। তাই বাজারে এখন কী ইন আর কী আউট তা এক ঝলক দেখে নেওয়া যাক।

ফিউসন এখন ফ্যাশনের দোসর। জুতো বাজারেও ভীষণ ভাবে ছোঁয়াচ লেগেছে তার। গত কয়েক বছর পাদুকা-ফ্যাশন থেকে প্ল্যাটফর্ম হিল বিদায় নিয়েছিল। এ বছর সে আবার ফিরে এসেছে। কিন্তু কিছুটা নতুন রূপে। খুব সাধারণ রাবার সোলের চপ্পলের সঙ্গে প্ল্যাটফর্ম হিলের মেলবন্ধন। সঙ্গে স্টোন দেওয়া স্টাইলিশ স্ট্র্যাপ। শর্ট স্কার্ট থেকে শাড়ি, সবার সঙ্গেই সমান জম্পেশ। এই রকম জুতোতে ছাই রঙের সঙ্গে হলুদ, নীল, গোলাপির কম্বো ফাটাফাটি। এছাড়াও প্ল্যাটফর্ম হিলের প্রিন্টেড হাওয়াই চপ্পল রোজকার ব্যবহারের জন্য এক্কেবারে পারফেক্ট।

আগের বছরগুলোর মতন এবারও বাজার জুড়ে ফ্ল্যাট চটির রাজত্ব। তার মধ্যে মাল্টি কালারের কাপড়ের টুকরোর কারুকাজ থেকে জারদৌসি কাজ, খুব সিম্পল বহু রঙা সরু চামড়ার স্ট্র্যাপ থেকে স্টোনের কারুকরি, জুটের বেসের উপর সূঁচ-সুতোর শিল্পকলা, প্লাস্টিকের বা রাবারের ঝুমঝুমি ফুল- ফ্ল্যাট জুতোর ব্যাপ্তি কিন্তু বিস্তৃত বাজার জুড়ে।

এছাড়াও মেরুন, সাদা, গোলাপি নরম ব্যালেরিনা ক্যাসুয়াল ওয়েস্টার্ন পোশাকের সঙ্গে পারফেক্ট ম্যাচিং। এর সঙ্গে বিভিন্ন নাগরা তো আছেই। তবে পেন্সিল হিলের স্টিলেটো এবার বাজার মাত করে দিয়েছে। একেবারে সাদা থেকে বিভিন্ন প্যাস্টেল শেডস স্টিলেটো এখন পাদুকার শেষ কথা।

`জুতোর আমি জুতোর তুমি/ জুতো দিয়ে যায় চেনা…” পায়ের একপাটি জুতো কিন্তু রুচির পরিচয় বহন করে। ঠিকঠাক সাজুগুজুর সঙ্গে জুতোর গাঁটছাড়াটা ঠিক মতো না হলে সাজের সব আয়োজন মাটি হয়ে যাবে। অতএব কী কী কীনছি এবং কী পরছি তার দিকে সতর্ক নজর থাকা খুব জরুরি। সবাই কী কিনছে সেকথা না ভেবে আমাকে কী মানাচ্ছে আর কোন জামার সঙ্গে কী জুতো চলতে পারে সেটার একটা মোটামুটি আইডিয়া করে নিতে পারলেই কেল্লাফতে। নিজস্ব স্টাইল স্টেটমেন্টে যে কোনও দিনই আপনিই ব্লকবাস্টার।