মেইন ম্যেনু

জেএমবির ৩৬ জনকে ১০ বছর ধরে খুঁজছে পুলিশ

নিষিদ্ধঘোষিত জঙ্গি সংগঠন জামাআ’তুল মুজাহিদীন বাংলাদেশের (জেএমবি) ৩৬ সদস্যকে ১০ বছর ধরে খুঁজছে চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশ (সিএমপি)। ২০০৫ সালের ১৭ আগস্ট চট্টগ্রামে সিরিজ বোমা হামলায় অংশ নেওয়া জেএমবির এসব সদস্যকে হন্যে হয়ে খুঁজলেও তাদের টিকিটিও ছুঁতে পারেনি পুলিশ। এমনকি তাদের সঠিক নাম-ঠিকানারও হদিস পায়নি।

গোয়েন্দা কর্মকর্তাদের ধারণা- নিখোঁজ ওইসব জেএমবি সদস্য ছদ্মবেশে আনসারুল্লাহ বাংলাটিম, হিযবুত তাহরীর, শহীদ হামজা ব্রিগেডসহ বিভিন্ন উগ্রপন্থি সংগঠনে সম্পৃক্ত হয়ে পড়েছে। সিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার (অপারেশন ও ক্রাইম) দেবদাস ভট্টচার্য্য বলেন, পলাতক ৩৬ জঙ্গিকে গ্রেফতারের জন্য মহানগর গোয়েন্দা পুলিশকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। ওই ৩৬ জঙ্গিকে গ্রেফতারের জন্য গোয়েন্দা পুলিশ কাজ করছে।

মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত উপ- কমিশনার বাবুল আকতার বলেন, তদন্তকালে সিরিজ বোমা হামলায় অংশ নেওয়া ৭০ জনের মতো নাম পাওয়া গিয়েছিল। তাদের মধ্যে ৩৬ জনকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি। যারা এ হামলায় অংশ নিয়েছিল তারা চট্টগ্রামের অধিবাসী নয়। তাই তাদের গ্রেফতার করা কঠিন হয়ে পড়েছে।

সিএমপি সূত্রে জানা যায়, জেএমবির নিখোঁজ ৩৬ জঙ্গির সবাই চট্টগ্রামে সিরিজ বোমা হামলার বিভিন্ন মামলার আসামি। তারা বিভিন্ন গ্রুপে বিভক্ত হয়ে চট্টগ্রামের ২০টি স্পটে বোমা হামলা করেছিল। সিরিজ বোমা হামলাকারীদের মধ্যে যারা গ্রেফতার হয়েছিল তাদের জবানবন্দিতে নামগুলো আসে। নিখোঁজ এসব জঙ্গির খোঁজে ২০১৪ সালে চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশ ‘চট্টগ্রাম মহানগরের শীর্ষ জঙ্গিদের নামের তালিকা’ তৈরি করে।

সিএমপির ওই তালিকায় যাদের পলাতক দেখানো হয়েছিল তারা হলেন- বিপ্লব, মো. শফিকুল ইসলাম, তসলিম, শাহাদাৎ হোসেন, বাবুল, আরিফুর রহমান ওরফে আকাশ, জুয়েল খান, তরিকুল ইসলাম মিঠু, রকিবুল হাসান উজ্জ্বল, আবদুর রহমান, ফরহাদ নাছিম বাপ্পী, মো. ইব্রাহিম, মো. মালেক, মামুন, হাফেজ হাবিবুর রহমান, মাওলানা নোয়াব মিয়া, মো. আবদুল হাফিজ, আবু নূর প্রকাশ আইয়ূব আলী, মো. ফরিদুজ্জামান স্বপন, সুমন, মো. ফেরদৌস, সাইফুল, মো. ইউসুফ, দেলোয়ার হোসেন, জাহিদ, আনিছ, আবুল কাশেম, জসিম, সালাউদ্দিন, নূরুল আমিন প্রকাশ নাবিল প্রকাশ মিন্টু, মিজানুর রহমান প্রকাশ শাওন, মো. জনি শেখ, আবুল হোসেন, মো. মনিরুল ইসলাম প্রকাশ সাইফুল্লাহ, মো. রফিকুল ইসলাম এবং মো. জাহিদুল ইসলাম।-বাংলাদেশপ্রতিদিন