মেইন ম্যেনু

জেনে নিন কোন দেশের মানুষ কত বছর বয়সে বিয়ে করেন?

ছেলে-মেয়েরা বড় হলে বাবা-মায়ের একটি প্রশ্নই ঘুরেফিরে আসে, বিয়ে করছো কবে? গোটা বিশ্বে এ অবস্থা অতি সাধারণ। অনেকে একটু আগেভাগেই বিয়ে করে ফেলেন। আবার কেউ বা অনেক পরে। আবার অনেকে বিয়েই করেন না। বাংলাদেশের মানুষ সাধারণত কত বছর বয়সে বিয়ে করেন? তাও দেখানো হয়েছে এক তালিকায়।

বিয়ের ক্ষেত্রে দেশ-জাতিভেদে আলাদা বৈশিষ্ট্য দেখা যায়। এখানে বিয়ে করার ক্ষেত্রে মানুষের গড় বয়সের কথাই বলা হচ্ছে। দেশভেদে এই বয়সে ভিন্নতা রয়েছে। কোন দেশের মানুষ আপনি তার ওপর নির্ভর করে কত বছর বয়স পর্যন্ত আপনি একাকী থাকতে পারছেন। এরপর বিয়ের জন্যে পরিবারের চাপ আসবে। এমনকি সমাজও এখানে বড় ভূমিকা রাখে।

আসলে একজন মানুষ কোন বয়সে বিয়ে করছেন তা নির্ভর করে ওই দেশের গড় আয়ের ওপর। দেখা যায়, ধনী ও নর্ডিক দেশ বা সুইডেনের মানুষ তিরিশের আগে বিয়ে করেন না। কিন্তু সেন্ট্রাল আফ্রিকায় বিয়ের গড় বয়স ২০। জরিপে দেখা গেছে, এরাই সবচেয়ে কম বয়সে বিয়ে করেন।

তবে আয়ের সঙ্গে যে বিয়ে শক্তভাবে জড়িয়ে রয়েছে তা নয়। অন্যান্য শর্তও কাজ করে। যেমন- আমেরিকা চিলির চাইতে ধনী হলেও দুটো দেশেই বিয়ের গড় বয়স ২৮-এর আশপাশে।

এখানে দেশভেদে বিয়ের গড় বয়সের যে তথ্য দেওয়া হয়েছে তাতে কিছু অভাব থেকেই গেছে। যেমন- বহু দেশ এ বিষয়ে প্রতিবছর কোনো জরিপ পরিচালিত করে না। এখানে বিভিন্ন দেশের ২০০৯-২০১৪ সালের তথ্য-উপাত্তের ভিত্তিতে দেশভেদে বিয়ের বয়সের তালিকা করা হয়েছে। এ জরিপের নাম দেওয়া হয় ‘মিন সিঙ্গুলেট এজ অ্যাট ম্যারিজ’।

২০টি দেশের তথ্য দেওয়া হয়েছে। ডানে দেশের নাম ও বামে গড় বয়স দেওয়া হয়েছে তালিকাটির।

এ তালিকাভুক্ত দেশের নারী-পুরুষরা সাধারণত কোন বয়সে বিয়ে করেন তাই দেখানো হয়েছে। তবে একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় বিবেচনায় রাখতে হবে। তা হলো, পুরুষরা নারীদের চেয়ে আরো বেশি বয়সে বিয়ে করেন। দরিদ্র দেশে পুরুষরা নারীদের চেয়ে গড়ে ৩.৭ বছর পর বিয়ে করেন। মিসরে নারীরা পুরুষদের চেয়ে ৫ বছর আগে বিয়ে করেন। আবার ধনী দেশ যেমন ফ্রান্সে এই পার্থক্য মাত্র ১.৬ বছর। এ জরিপে বলা হয়, লিঙ্গ বৈষম্য দেশের উন্নয়নকে বাধাগ্রস্ত করে।

সবার ওপরে রয়েছে জার্মানি। সেখানে মানুষ গড়ে ৩৩.১ বছর বয়সে বিয়ে করেন। এর পরই ব্রাজিল ৩০.৮ বছর, জাপান ৩০.৫ বছর এবং আমেরিকা ২৭.৯ বছর বয়সে বিয়ে করেন। ২০টি দেশের মধ্যে কম বয়সে বিয়ের তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে বাংলাদেশ, ২২.২ বছর বয়সে।

কিছু দেশে আবার নারীদের অনেক কম বয়সে বিয়ে দেওয়া হয়। জাতিসংঘের হিসাবমতে, ৩৯টি দেশের ২০ শতাংশ নারী মাত্র ১৮ বছর বয়সে এবং ২০টি দেশে ১৫ বছর বয়সে বিয়ে করে ফেলেন। আবার দুটো দেশের ১০ শতাংশ পুরুষ মাত্র ১৮তেই বিয়ে পিঁড়িতে বসেন।

আবার পৃথিবীর বেশ কিছু দেশে নারীদের বিয়ের বয়স বেড়েছে। সত্তর দশক থেকে ২০০০ নাগাদ এ বয়স ২১.৮ বছর থেকে ২৪.৭-এ উন্নীত হয়েছে।

আবার অনেক পরেও বিয়ে করছেন অনেকে। প্রায় এক ডজন দেশে ৮০ শতাংশ নারী-পুরুষ গড়ে ৪৯ বছর বয়সে বিয়ে করেছেন।