মেইন ম্যেনু

জেনে নিন, কোমল ত্বকের জন্য করনীয় কি!

শীতে তো ত্বক শ্রীহীন হয়ে পড়বেই। তবে একটু যত্ন নিলেই আপনার ত্বক থাকবে অন্য সময়ের মতোই কোমল, সুন্দর ও মসৃণ। আর সেজন্য অনেক টাকা খরচ করে প্রসাধনী ব্যবহার না করলেও হবে।

ঘরে থাকা অতি সাধারণ জিনিস ব্যবহার করেই নিতে পারবেন ত্বকের যত্ন। আপনার ত্বক বুঝে বেছে নিন যত্নের পদ্ধতি।

শুষ্ক ত্বক :
১. গুঁড়ো দুধ, মধু, আমন্ড অয়েল একসাথে মিশিয়ে ত্বকে লাগান। ১৫-২০ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন। এতে ত্বকের আর্দ্রতা বজায় থাকে।
২. দুটো খেজুর সারা রাত দুধে ভিজিয়ে রাখুন। গোলাপের পাপড়ি, খেজুর বেটে পেস্ট করে নিন। এরপর এতে খানিকটা চন্দনের গুঁড়ো মিশিয়ে ত্বকে লাগান। ১৫ মিনিট পর সাধারণ পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। ত্বক মসৃণ হবে।
৩. কমলালেবুর রস খুব ভালো ময়েশ্চারাইজার। এর সাথে মেথিবাটা, দুধ ও ময়দা মিশিয়ে সাবানের পরিবর্তে মুখ ধোয়ার জন্য এই মিশ্রণ ব্যবহার করুন।

তৈলাক্ত ত্বক :
১. কাঁচা হলুদের রস ও মুলতানি মাটি মিশিয়ে প্যাক বানিয়ে মুখে লাগান। প্যাক শুকিয়ে এলে গোলাপজলে তুলা ভিজিয়ে ভালো করে মুছে ফেলুন। আরো আধা ঘণ্টা পর মুখ ধুয়ে ফেলুন।
২. পাতিলেবুর রস, নিমপাতার রস, মুলতানি মাটি মিশিয়ে পুরো মুখে লাগিয়ে রাখুন। আধা ঘণ্টা পর ঠাণ্ডা পানির ঝাপটা দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।
৩. কমলালেবুর খোসাবাটা ও চালের গুঁড়ো সমপরিমাণে মিশিয়ে প্যাক বানিয়ে লাগান। প্যাক আধাশুকনা হলে প্রথমে তরল দুধ লাগিয়ে হালকাভাবে মাসাজ করে স্ক্রাব করুন, এরপরে পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

মিশ্র ত্বক :
১. ত্বকের ক্লান্তি দূর করতে মসুর ডালের পেস্ট ও ধনেপাতার রস মিশিয়ে মুখে লাগান। আধা ঘণ্টা পর ঠাণ্ডা পানির ঝাপটা দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।
২. শীতে ত্বকে ছোপ ছোপ দাগ বেড়ে যায়। ছোপ দূর করতে টমেটোর রস, কাঁচা হলুদের রস, গমের আটা ভালো করে মিশিয়ে মুখ, গলা ঘাড়ে লাগান। শুকিয়ে গেলে গোলাপজল দিয়ে মুছে ফেলুন।
৩. ডাবের পানি, গোলাপজল ও পাতিলেবুর রস একসঙ্গে মিশিয়ে ত্বকে লাগান। শুকিয়ে গেলে ধুয়ে ফেলুন।
৪. এক টেবিল চামচ কমলালেবুর রস সমপরিমাণ ওটমিলের সাথে ভালো করে মিশিয়ে ত্বকে লাগান।
৫. গোলাপের পাপড়ি বাটা, দুধের সরবাটা ও মধু একসাথে মিশিয়ে ত্বকে লাগান। ত্বক মসৃণ হবে।
৬.পাকা পেঁপে চটকে নিয়ে তাতে মধু মিশিয়ে মুখে, গলায়, হাতে লাগিয়ে ২০ মিনিট অপেক্ষা করুন। এরপর ধুয়ে ফেলুন।