মেইন ম্যেনু

জেনে নিন চেঞ্জিং রুমের গোপন ক্যামেরা থেকে বাঁচবেন কীভাবে?

অসতর্ক থাকলে যে কোনও সময়ই আপনি হতে পারেন গোপন ক্যামেরার শিকার। হোটেল রুম, বিউটি পার্লার, পাবলিক টয়লেট কিংবা শপিং মলের চেঞ্জিং রুমে। পোষাকি নাম হিডন ক্যামেরা। তবে একটু সতর্ক থাকলে খুব সহজেই এর নিজেকে রক্ষা করতে পারেন। খুব সহজে খুঁজে নেওয়া যায়, ঘরের কোনও কোণায় গোপন ক্যামেরার অস্তিত্ব আছে কি না।

এর জন্য আপনার লাগবে একটা মোবাইল ফোন (অ্যাক্টিভেটেড) যেখান থেকে ফোন করা যাবে। এবার ধরুন ট্রায়াল রুমে ঢুকে আপনার মোবাইল থেকে কাউকে কল করুন। যদি কল করা যায় ও নেটওয়ার্ক থাকে- তাহলে গোপন ওই ঘরে ক্যামেরা নেই। আর যদি কল করা না যায় ও নেটওয়ার্ক হঠাৎ করে ডাউন হয়ে যায়-তাহলে অবধারিত ভাবে বুঝবেন সেখানে গোপন ক্যামেরা রয়েছে।

গোপন ক্যামেরার সাথে একধরণের ফাইবার অপটিক্যাল কেবল থাকে। সিগন্যাল ট্রান্সফার করার সময় এর ইন্টারফিয়ারেন্স হতে থাকে। যার জন্য মোবাইল নেটওয়ার্ক সেখানে কাজ করেনা। এভাবেই আপনি পারেন গোপন ক্যামেরার থেকে বাঁচতে পারবেন।

শপিংমলের ট্রায়াল রুমে যে আয়না থাকে সেটাও আসল না হতেপারে, এটিও গোপন ক্যামেরার মতই মারাত্মক ! প্রযুক্তির অপব্যবহারে আসল আয়নার মাঝে এখন যুক্ত হয়েছে নকল আয়না বা ট্রান্সপারেন্ট গ্লাস। এই আয়নায় আপনি আপনার চেহারা দেখতে পারবেন, কিন্তু ভুলেও বুঝতে পারবেন না যে অন্যপাশ থেকেও কেউ আপনাকে দেখছে। অথবা আয়নার উল্টোদিকে রয়েছে কোনও অত্যাধুনিক ক্যামেরা। কী করে বুঝবেন গ্লাসটি আসল না নকল?

খুব সহজ, আপনার আঙুল আয়নার উপর রাখুন। যদি আপনার আঙুলের মাথার প্রতিবিম্ব আঙ্গুলের মাথার সাথে না লাগে (মাঝে যদি ফাঁকা থাকে) তাহলে আয়নাটি সাধারণ বা আসল। আর যদি আঙ্গুলের মাথা প্রতিবিম্বের মাথার সাথে লেগে যায়, তার মানে আয়না নকল। সেটি আসল আয়না নয়। আদতে একটি ‘ফলস গ্লাস’।

এছাড়াও যাঁরা অ্যান্ডরয়েড কিংবা আইফোন অপেরেটিং সিষ্টেমের স্মার্ট ফোন ব্যবহার করেন, তাদের পক্ষে সবচেয়ে সহজ হবে গোপন ক্যামেরা সনাক্তকরণ ‘অ্যাপস’ ইনস্টল করে নিন। সেক্ষেত্রে অ্যাপসটিই আপনাকে জানিয়ে দেবে, ঘরে কোনও লুকোনো ক্যামেরা আছে কি না।