মেইন ম্যেনু

জেনে নিন, যে আ্যপগুলো আপনার মোবাইল ধংস করে দিচ্ছে!

মোবাইল ব্যবহারকারীদের মধ্যে এ মুহূর্তে সব থেকে জনপ্রিয় অ্যান্ড্রয়েড মোবাইল। এ নিয়ে বিশেষ কোনও দ্বিমত নেই। এর কারণও রয়েছে অবশ্য। প্রথমত প্রচুর অ্যাপ রয়েছে। যা বিনে পয়সায় মোবাইলে ডাউনলোড করা যায়। দ্বিতীয়ত, এখন তো বেশ সস্তায় ভালো ফিচারওয়লা মোবাইল রয়েছে। ফলে বিক্রিও বেশি। তবে দুর্ভ্যাগ্যের বিষয়, অ্যান্ড্রয়েড মোবাইল খারাপও হচ্ছে বেশ তাড়াতাড়ি।

প্রথমে জানতে হবে, খারাপ কেন হচ্ছে? দোষটা বেশিরভাগই ক্রেতাদের। মোবাইল কেনার সময় দোকানে দাঁড়িয়ে দেখলেন বেশ ফাস্ট। র‌্যামও ভালো। অমনি একগাদা অ্যাপ ইনস্টল করে ফেললেন। ফলে ধীরে ধীরে মোবাইল স্লো হবে। ব্যাটারি ব্যাক-আপও ভালো পাবেন না। বারবার হ্যাং হতে শুরু করবে। তার পরই একেবারে দেহ রাখার দিকে এগিয়ে যায় সাধের মোবাইল ফোনটি।

ব্যক্তিগত তথ্য পাচারের ভয়:
আরও একটি ব্যাপার লক্ষ্য করে থাকবেন, যে কোনও অ্যাপ ডাউনলোড করার সময় কিছু পারমিশন চাওয়া হয়। সেগুলিতে আসলে কি লেখা থাকে তা আমরা কেউই পড়ে দেখি না। যে কোনও অ্যাপ আপনার মোবাইল বা আপনার একান্ত ব্যক্তিগত ডেটা নিয়ে কী ভাবে ছিনিমিনি খেলতে পারে তা দেখার জন্য নিজেরাই একবার সেটিংস-এ গিয়ে অ্যাল্পিকেশন ম্যানেজার খুলে কী কী ব্যাপারে পারমিশন দেওয়া হয়েছে তা দেখে নিতে পারেন। সেখানে খুঁজলে এমনটাও দেখতে পারেন যে, কোনও নির্দিষ্ট অ্যাপ চাইলে আপনার ফোনবুক-কললিস্ট-মেসেজ দেখতে পারে এবং তা এডিট করতে পারে। আপনার মোবাইলের মেমরি কার্ডের সমস্ত ডেটা দেখতে এডিট করতে, আপলোড করতে এবং ডিলিট করতে পারে। ফলে এ দিক থেকে অ্যান্ড্রয়েডে একটা মস্ত বড় ফাঁক থেকেই যাচ্ছে।

বারোটা বাজানো অ্যাপ:
এর সঙ্গে যুক্ত হয় বেশ কিছু ফোনের সর্বনাশকারী অ্যাপ। যা আপনার মোবাইলে ইনস্টল করা থাকলে একাধারে ব্যাটারি, ফোনের র‌্যাম এবং সর্বোপরি ফোনের মেমরি নিয়মিত খেতে থাকে। যা মোবাইলের পারফরম্যান্সে ভয়ানক প্রভাব ফেলে।

সম্প্রতি অ্যান্টিভাইরাস প্রস্তুতকারক সংস্থা AVG অ্যাপের তালিকা প্রকাশ করেছে যা (এর মধ্যে গেমসও রয়েছে) আপনার মোবাইলের বারোটা বাজানোর পক্ষে যথেষ্ট:

১) ফেসবুক ২) হোয়াটসঅ্যাপ ৩) গুগল প্লে ৪) বিবিএম ৫) ইনস্টাগ্রাম ৬) মেসেঞ্জার ৭) স্যামসাঙ চ্যাটঅন ৮) ফেসবুক পেজ ম্যানেজার ৯) মাইক্রোসফ্ট আউটলুক ১০) স্ন্যাপচ্যাট ১১) আমাজন শপিং ইউকে ১২) লাইন ১৩) ক্লিন মাস্টার ১৪) উইচ্যাট ১৫) অ্যান্ড্রয়েড আপডেটর ১৬) ওয়েদার অ্যান্ড ক্লক উইজেট ১৭) স্কাইপ ১৮) ইনস্টাগ্রাম ১৯) ট্যাঙ্গো ২০) গুগল ২১) ফোটো এডিটর ২২) ক্রোম ২৩) এইলিস ২৪) অ্যাপ্স লঞ্চার ২৫) গ্রুপ-অন ২৬) নেটপ্লিক্স ২৭) বিবিসি নিউজ ২৮) টিন্ডার ২৯) টাম্বলার ৩০) ফ্যান্সি রোড ৩১) ক্ল্যাশ অফ দ্য ক্ল্যান্স ৩২) ক্যান্ডি ক্রাশ সাগা ৩৩) ফার্ম হিরোস সাগা ৩৪) ক্যান্ডি ক্রাশ সোডা সাগা ৩৫) এইট বল পুল ৩৬) মাই টকিং অ্যাঞ্জেলা ৩৭) ডোন্ট ট্যাপ দ্য হোয়াইট হাউজ ৩৮) ডেস্পিকেবল মি ৩৯) মাই টকিং টম ৪০) আইহার্ট রেডিও।-এই সময়