মেইন ম্যেনু

জোড়া লাগানো নবজাতককে হাসপাতালে রেখে পালিয়েছে বাবা-মা

ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের জরুরি বিভাগে শুক্রবার দিবাগত রাত আনুমানিক সাড়ে ১২টার দিকে কয়েকজন পুরুষ ও মহিলা সদ্য প্রসূত এক নবজাতককে নিয়ে এসে দ্রুত চিকিৎসার জন্য কান্নাকাটি জুড়ে দেন। কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকিয়ে দেখেন জোড়া লাগানো জমজ নবজাতক ছেলে শিশু।

নবজাতকের মাথা, চোখ, কান, মুখ ও নাক পৃথক হলেও হাত চারটি। পা দুটি ও লিঙ্গ একটি। চিকিৎসক কাল বিলম্ব না করে নবজাতক শিশুটির সুচিকিৎসার জন্য দ্রুত শিশু সার্জারি বিভাগে পাঠান। ২০৫ নম্বর ওয়ার্ডের চিকিৎসকরা শিশুটিকে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে পর্যবেক্ষণে রাখেন।

কিছুক্ষণ পর কর্তব্যরত চিকিৎসক যখন নবজাতকের জম্মের ইতিহাস ও জম্ম পরবর্তী সমস্যা সম্পর্কে জানতে বাবা মা ও আত্মীয়-স্বজনের খোঁজ নেন তখন সেখানে কাউকে খুঁজে পাওয়া যায় না। রাত গড়িয়ে সকাল হলে চিকিৎসকদের বুঝতে অসুবিধা হয় না যে নবজাতককে ফেলে বাবা মা ও অন্যান্যরা পালিয়েছে। চিকিৎসকরা বিষয়টি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেন।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডা. খাজা আবদুল গফুর ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, নবজাতক শিশুটি ২০৫ নম্বর ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন। রাতে ওই ওয়ার্ডে আসার পর থেকে নবজাতকের কোনো স্বজনকে পাওয়া যায়নি। অভিভাবক না থাকলেও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাদের জিম্মায় রেখে চিকিৎসা চালিয়ে যাবেন বলে জানান। নবজাতককে কে বা কারা কোথা থেকে কি তথ্য দিয়ে ভর্তি করলো তা খতিয়ে দেখছেন বলে তিনি জানান।