মেইন ম্যেনু

জ্যামাইকাকে হারিয়ে মেক্সিকোর দশম শিরোপা

কোয়ার্টার ফাইনাল এবং সেমিফাইনাল- দুই ম্যাচের কোনোটিতেই নির্ধারিত ৯০ মিনিটে গোল করতে পারেনি মেক্সিকো। নকআউট পর্বের দুই ম্যাচেই অতিরিক্ত সময়ের গোলে এবারের কনকাকাফ গোল্ড কাপের ফাইনালের টিকিট পেয়েছিল মিগুয়েল হেরেরার দল। তাও আবার পেনাল্টি থেকে গোল করে। শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচে মেক্সিকোর সামনে ছিল প্রথম ক্যারিবিয়ান দল হিসেবে গোল্ড কাপের ফাইনালে ওঠা জ্যামাইকা।

আর ফাইনালে জ্যামাইকাকে সামনে পেয়েই জ্বলে উঠল মেক্সিকোর খেলোয়াড়রা। এবার আর অতিরিক্ত সময়ের প্রয়োজন পড়ল না। প্রয়োজন পড়ল না পেনাল্টি থেকে গোল করারও। শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচের ৬১ মিনিটের মধ্যেই জ্যামাইকার জালে তিনবার বল জড়াল মিগুয়েল হেরেরার শিষ্যরা। ৩-১ গোলের জয়ে কনকাকাফে নিজেদের দশম শিরোপাও নিশ্চিত হয়ে গেল মেক্সিকোর।

টুর্নামেন্টের নাম কনকাকাফ চ্যাম্পিয়নশিপ থাকাকালীন তিনবার শিরোপা জিতেছিল মেক্সিকো। ১৯৯১ সালে কনকাকাফ চ্যাম্পিয়নশিপ থেকে টুর্নামেন্টের নাম হয় কনকাকাফ গোল্ড কাপ। এই সময়ে আরো সাতবার শিরোপার উৎসব করল দেশটি। অর্থাৎ কনকাকাফে সব মিলিয়ে মেক্সিকোর শিরোপার সংখ্যা দাঁড়াল রেকর্ড দশটি। তাদের ধারেকাছেও কেউ নেই। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ পাঁচটি শিরোপা জিতেছে যুক্তরাষ্ট্র।

যুক্তরাষ্ট্রের ফিলাডেলফিয়ায় সোমবার বাংলাদেশ সময় ভোরে অনুষ্ঠিত ফাইনালের শুরু থেকেই ছিল মেক্সিকোর দাপট। ম্যাচের ৩১ মিনিটে দারুণ এক ভলিতে গোল করে দলকে লিড এনে দেন আন্দ্রেস গুয়ারদাদো। নকআউট পর্বে ২৭০ মিনিট পর পেনাল্টি ছাড়া এটাই মেক্সিকোর প্রথম গোল! প্রথমার্ধে আর কোনো গোল হয়নি। ১-০ গোলে এগিয়ে থেকেই বিরতিতে যায় মেক্সিকো।

বিরতির পর খেলার শুরুতেই স্কোরলাইন ২-০ করে ফেলে মেক্সিকো। ৪৭ মিনিটে দলের দ্বিতীয় গোলটি করেন জেসাস করোনা। এরপর ৬১ মিনিটে অরিবে পেরালটার গোলে গোল্ড কাপের শিরোপা একরকম নিশ্চিত হয়ে যায় মেক্সিকোর। ম্যাচের ৮০ মিনিটে জ্যামাইকার ড্যারেন ম্যাট্টকস কেবল সান্ত্বনা হিসেবে একটি গোল শোধ করেন। ৩-১ গোলের জয়ে শিরোপার উৎসবে মাতে মেক্সিকো।