মেইন ম্যেনু

জয়পুরহাটের ক্ষেতলালে সাপে দংশন : ওঝার ঝাড়ফুঁক বাঁচতে দিল না শিশুকে

সাপে কাটার পর (দংশন)প্রয়োজনীয় জরুরি চিকিৎসার পরিবর্তে গ্রাম্য ওঝা (কবিরাজ) কে দিয়ে ঝাড়ঝুঁকের মাধ্যমে শরীর থেকে সাপের বিষ নামানোর চেষ্টা ব্যর্থ হওয়ায় জীবন গেল সিনথিয়া নামে ১বছরের এক নিরোপরাধ শিশুটির।সোমবার ভোর রাতে এ ঘটনাটি ঘটেছে জেলার ক্ষেতলাল উপজেলার ভাসিলা গ্রামে।নিজেদের র্নিবুদ্ধির কারনে প্রানপ্রিয় শিশুর অপঘাতে মৃত্যু হওয়ায় তার বাবা-মা শোাকে এখন প্রায় নির্বাক।

জানা গেছে, ক্ষেতলাল উপজেলার ভাসিলা গ্রামে কৃষক শরিফুল ইসলাম ও তার স্ত্রী সোমবার রাতে প্রচন্ড গরমের কারনে তাদের ১বছর বয়সের কন্যাশিশু সিনথিয়াকে নিয়ে শয়ন ঘরের চৌকির নিচে মেঝেতে ঘুমিয়ে পড়ে

।সোমবার আনুমানিক রাত দেড়টার দিকে সিনথিয়া হঠাৎ কেঁদে উঠলে তার বাবা-মা উভয়েরই ঘুম ভেঙে যায়।তারা উঠে দেখে তাদের মেয়ের বাম হাতে দংশনের দাগএবং স্থানটি রক্তাক্ত হয়ে গেছে।সাপটিকে না দেখতে পেলেও সাপের দংশন করেছে ভেবে সাথে সাথে তারা শিশুটির হাতে কাপড় দিয়ে বাঁধন দেয়।যাতে রক্ত চলাচল করতে না পারে।এর পর তারা একই গ্রামের কথিত ওঝা -মফির উদ্দিন কবিরাজের কাছে নিয়ে যায়।

কবিরাজ শিশুটির হাতের বাঁধন খুলে দিয়ে ঝাড় ফঁকি দিয়ে শিশুটির শরীর থেকে সাপের বিষ নামানোর চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়।অবশেষে মঙ্গলবার ভোরে শিশুটিকে স্থানীয় ক্ষেতলাল উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিয়ে গেলে কর্তবরত চিকিৎসকরা তাকে পরীক্ষা করে মৃত ঘোষনা করেন।