মেইন ম্যেনু

টাই না পরায় ব্যাংক কর্মকর্তাকে কান ধরে উঠবস

অফিসে টাই পরে না আসায় প্রকাশ্যে এক সিনিয়র এক্সিকিউটিভকে কান ধরে উঠবস করিয়েছেন যমুনা ব্যাংকের মানব সম্পদ বিভাগের প্রধান। একইসঙ্গে অফিসিয়াল সিস্টেম না মানার অভিযোগ এনে ওই এক্সিকিউটিভকে দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়ারও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার সুরমা টাওয়ারের যমুনা ব্যাংক, মতিঝিল শাখায় এ ঘটনা ঘটে। এ নিয়ে ব্যাংকের কর্মকর্তাদের মধ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, আজ সারপ্রাইজ ভিজিট (হঠাৎ পরিদর্শন)- এ মতিঝিল শাখায় যান যমুনা ব্যাংকের মানবসম্পদ বিভাগের প্রধান মামুন মাহমুদ। পরিদর্শনে গিয়ে ব্যাংকের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তাদের তিরস্কার করতে থাকেন। এ নিয়ে প্রতিষ্ঠানটির কর্মকর্তারা বিব্রতবোধ করেন। একপর্যায়ে এক সিনিয়র এক্সিকিউটিভের কাছে জানতে চান, আপনি টাই পরে আসেননি কেন?

জবাবে ওই এক্সিকিউটিভ পোশাক-পরিচ্ছদ সংক্রান্ত বাংলাদেশ ব্যাংকের সার্কুলারের কথা স্মরণ করিয়ে দেন। এতে মানবসম্পদ বিভাগের প্রধান ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন। এরপর তিনি ওই এক্সিকিউটিভকে কান ধরে উঠবস করতে বলেন। এতে বাধ্য হয়ে কান ধরে উঠবস করেন তিনি।

এ নিয়ে ব্যাংকের সিনিয়র কর্মকর্তাদের মধ্যে তীব্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়। মানব সম্পদ বিভাগের প্রধান চলে যাওয়ার পর অনেকটা ক্ষোভের কণ্ঠে তারা বলেন, মানুষ সম্মানের জন্য চাকরি করে। আর এতে তাই সম্মান যদি না থাকে তাহলে চাকরি করে কি লাভ?

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে মামুন মাহমুদ বুধবার টেলিফোনে বলেন, ঘটনাটি ঠিক এভাবে ঘটেনি। ওই এক্সিকিউটিভকে বলেছিলাম নেক্সট টাইম টাই পরে না এলে আমি কিন্তু কান ধরতে বলব। এতেই তিনি কান ধরে উঠবস করেন। পরে তাকে ধমক দেওয়ায় কানের কাছে হাত নামিয়ে রাখেন। তিনি জানান, ওই কর্মকর্তা একটু বোকা টাইপের, না হলে কেউ এভাবে কান ধরে।

মামুন মাহমুদ দাবি করেন, ব্যাংকের সিসিটিভি ফুটেজে এর সত্যতা মিলবে। সিসিটিভি ফুটেজ পাঠিয়ে দেওয়ার কথা বললে তিনি বলেন, এটা বেশ ঝামেলার, ব্যাংকের অনুমতি লাগবে।এটা পাঠানো আমার পক্ষে সম্ভব না।

তিনি আরো দাবি করেন, ব্যাংকের একটি অংশ তার কাজকর্মে প্রতিবন্ধতা সৃষ্টি করছে। তারাই এই অপপ্রচার চালাচ্ছে।