মেইন ম্যেনু

টাঙ্গাইলের ঘাটাইলে দুমাসে খোঁজ মেলেনি স্বপনের

টাঙ্গাইলের ঘাটাইলে দুই মাস যাবৎ নিখোঁজ রয়েছেন আধিবাসী জেলে স্বপন চন্দ্র বর্মন (৩৫)। তার বাড়ি ঘাটাইল উপজেলার আনেহলা ইউনিয়নের চরপাড়া গ্রামে। তার পিতার নাম প্রফুল্ল চন্দ্র বর্মন। স্বপন চন্দ্র বর্মন  গত ২১শে এপ্রিল রাতে তার নিজ বাড়ি থেকে নিখোঁজ হয়। এ ব্যাপারে স্বপনের মা সুমিত্রা রানী বর্মণ বাদী হয়ে টাঙ্গাইল আদালতে তার ছেলেকে অপহরণ করে হত্যা করে লাশ গুম করার অভিযোগে ছয় জনকে আসামি করে মামলা করেছে।

মামলার অভিযোগ থেকে জানা যায়, ঘাটাইল উপজেলার আনেহলা ইউনিয়নের চরপাড়া গ্রামের প্রফুল্ল চন্দ্র বর্মণ। তার সঙ্গে প্রতিবেশী বিকর্ন বর্মন ও অতিশ বর্মণের বাড়ি জমিজমা নিয়ে বিরোধ রয়েছে। প্রফুল্ল চন্দ্র বর্মণের ছেলে স্বপন চন্দ্র বর্মন (৩৫)। একজন জেলে। তার দুই বোন দুর্গারাণী বর্মন ও আদুরী রাণী বর্মণ তারা গাজীপুর উপজেলার শ্রীপুর উপজেলার লোহাগড়া এলাকায় একটি টেক্সটাইল মিলে চাকরি করে।

সেই সুবাধে স্বপনের মা ও পিতা স্বপনকে বাড়িতে রেখে মেয়েদের কাছে বেড়াতে যায়। ২১শে এপ্রিল রাত থেকে স্বপন নিখোঁজ হয়।
বাড়িতে এসে খোঁজাখুঁজি করে না পেয়ে স্বপনের মা সুমিত্রা রানী বর্মণ গত ২৮শে এপ্রিল বাদী হয়ে টাঙ্গাইল আদালতে তার ছেলেকে অপহরণ করে হত্যা করে লাশ গুম করার অভিযোগে ছয় জনকে আসামি করে মামলা করেছে।

আসামিরা হলো ঘাটাইল উপজেলার চরপাড়া গ্রামের বিকর্ণ চন্দ্র বর্মণ (৪০) অতিশ চন্দ্র বর্মণ (৩২) পীতিশ চন্দ্র বর্মণ (৩০), কালিহাতী উপজেলার পুংলি গ্রামের অভিরাম রাজবংশী (৩৫) এবং গাজীপুর উপজেলার শ্রীপুর উপজেলার লোহাগড়া গ্রামের বিউটি আক্তার(২৫) এবং তার ভাই রুবেল মিয়া (২৩)। স্বপনের বাবার অভিযোগ বাড়ির জমিজমা নিয়ে বিরোধের জের ধরে আসামিরা স্বপনকে জোরপূর্বক অপহরণ করে নিয়ে খুন করে তার লাশ গুম করে রেখেছে।