মেইন ম্যেনু

টেকনাফে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তালিকাভূক্ত শীর্ষ ইয়াবা ব্যবসায়ী ভুট্টো আটক

টেকনাফে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তালিকাভূক্ত শীর্ষ ইয়াবা ব্যবসায়ী ও ভুট্টো বাহিনীর প্রধান নুরুল হক ভূট্টোকে আটক করেছে টেকনাফ মডেল থানার পুলিশ। সে টেকনাফ সদর ইউনিয়নের ইয়াবাপাড়ার খ্যাত নাজিরপাড়ার এজাহার মিয়ার ছেলে। ১৮ আগষ্ট ভোররাতে ওসির নেতৃত্বে একদল পুলিশ ফোর্স তার বাড়ি থেকে তাকে আটক করে ।

টেকনাফ মডেল থানার অফিসার ইনর্চাজ (ওসি) আতাউর রহমান খোন্দকার জানান, তার বিরুদ্ধে ইয়াবা, অস্ত্রসহ বেশ ৫/৭টি মামলা রয়েছে। তাকে আদালতে প্রেরনের প্রক্রিয়া চলছে। তার বাহিনীর নেতৃত্বে শিলবুনিয়াপাড়ার এক বসত বাড়িতে হামলা চালিয়ে কয়েকজনকে কুপিয়ে আহত, একই এলাকার কালুর বসত বাড়ি, মোটর সাইকেল ভাংচুর ও হাতের আঙ্গুল কেটে নিয়ে ফেলা হয়, একই এলাকার জাফর নামে দুই ব্যক্তির মধ্যে একজনের মাথা ও আরেকজনের কান কেটে নেয়। সাবরাং’র এর এক ব্যক্তির হাতের কব্জি কেটে নেয় এবং গতবছরের ২৪ সেপ্টেম্বর অপহরণের শিকার ২ পর্যটক ঢাকা শাহবাগ আশুলিয়া থানার হাসান আলী পুত্র মোঃ আকিব (১৮)ও সিরাজগঞ্জ জেলার শাহাদাত পুর থানার তৈয়ুজাল মোলর পুত্র মোঃ মজনু (২৬) কে নুরুল হক ভূট্টো বাহিনীর বন্দিদশা থেকে টেকনাফ থানার পুলিশ উদ্ধার করে।

এছাড়া দক্ষিণ জালিয়াপাড়ার পুতুইন্যার পুত্র মোঃ ইসমাইলকে মাথায় ছুরিকাঘাত’সহ একের পর এক নানান অপরাধ মূলক কর্মকান্ড সংঘঠিত করে আসছিল এবং ভূট্টো বাহিনীর প্রধান নুরুল হক ভূট্টোর বিরুদ্ধে ২০১৫ সালের ২১ মার্চ জমি সংক্রান্ত বিষয়ে টেকনাফ থানায় ১০৪৪ নং জিডি, ২০১৫ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারী হামলায় ঘটনায় টেকনাফ থানায় ১০৯০ নং জিডি দায়ের করা হয়। এছাড়া এই বাহিনীর বিরুদ্ধে গত ঈদের নামাজ শেষে ভূট্টো বাহিনী প্রকাশ্যে গুলিতে টেকনাফ সদর ইউনিয়নের নাজিরপাড়া এলাকার প্রবাসী দুদু মিয়ার কন্যা নিহা মনি (৪) নামে এক শিশু কন্যার চোখ নষ্ট হয়ে যাওয়ার ঘটনায় ১৯/৪২৫ নং মামলা, টেকনাফ থানায় ২০১৩৯পিস ইয়াবা উদ্ধারের ঘটনায় বিজিবির ১৩১/৪২ মামলা, নাজিরপাড়ার সর্দার মৃত শেখ আহমদ সিকদারের ছেলে নজির আহমদ সন্ত্রাসী কায়দায় ভাড়াটে সন্ত্রাসী ভারী অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে হত্যার উদ্দেশ্যে হামলা চালায়।

এ ঘটনায় ২০১৫ সালের ২১ মে ৫৩/৩৬০ নং মামলা, ২০১৩ সালের ৬ নভেম্বর ১৩ নং মামলাসহ অসংখ্য মামলা ও অভিযোগ রয়েছে। সর্বশেষ গুরা মিয়া হামলার স্বাক্ষীকে হামলা ও তার বাড়িতে ভাংচুর চালায়। তার ভাগিনা আবছার ও হেলালের বিরুদ্ধে একই অভিযোগ রয়েছে। স্থানীয়দের মতে, ইয়াবা ব্যবসা করে দুই-এক বছরের মধ্যে অবৈধ টাকার পাহাড় অট্টালিকা প্রসাদ গড়ে তুলেছেন ভূট্টো বাহিনী প্রধান নুরুল হক ভূট্টো। ফলে টাকার গরমে কাউকে তারা মানুষকে মানুষ বলে মনে করেনা। ভুট্টো বাহিনী একের পর এক অপরাধ সংঘঠিত করে আসলে অবশেষে পুলিশের হাতে আটক হয়।।

এছাড়া গত বছরের ৫ জুলাই ভুট্টো বাহিনী আগ্নেয়াস্ত্র, দা, কিরিছ ও লাঠিসোটা নিয়ে টেকনাফ-শাহপরীরদ্বীপ সড়কে ব্যারিকেড বসিয়ে ১৫/২০ রাউন্ড গুলিবর্ষণ, লোকজনকে মারধর ও কার ভাংচুর করে। এ সময় অবৈধ আগ্নেয়াস্ত্র, দা, কিরিছ ব্যবহারের টেকনাফের কয়েকজন সংবাদকর্মী ছবি তুলতে গেলে তাদেরকে ধাওয়া করে। তার আটকের খবরে এলাকায় মিষ্টি বিতরণ করেছে বলে খবর পাওয়া গেছে।