মেইন ম্যেনু

ট্রাম্পের পররাষ্ট্র উপদেষ্টাদের নাম ঘোষণা

মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রিপাবলিকান পার্টি থেকে মনোনয়নের দৌড়ে এগিয়ে থাকা ডোনাল্ড ট্রাম্প তার পররাষ্ট্র উপদেষ্টাদের নাম ঘোষণা করেছেন। তিনি ক্ষমতায় এলে পররাষ্ট্রনীতি কেমন হবে, তার একটি রূপরেখা তৈরি করবেন এ উপদেষ্টারা।

ট্রাম্পের উপদেষ্টাদের মধ্যে একাডেমিক বিশেষজ্ঞ এবং প্রাক্তন সামরিক কর্মকর্তারা রয়েছেন, যারা মধ্যপ্রাচ্য ও জ্বালানি বিষয়ে বিশেষজ্ঞ।

বিবিসি অনলাইনের এক খবরে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

ওয়াশিংটন পোস্টকে ট্রাম্প বলেছেন, সামনের দিনে তিনি অন্য বিষয়ে উপদেষ্টাদের নাম ঘোষণা করবেন।

ট্রাম্পের পররাষ্ট্র নীতিবিষয়ক উপদেষ্টাদের মধ্যে কয়েকজন এর আগে অন্য রিপাবলিকান প্রার্থীর জন্য একই ইস্যুতে কাজ করেছেন। গত বারের রিপাবলিকান প্রার্থী মিট রমিন এবং এবারের মনোনয়নপ্রত্যাশী বেন কারসনের হয়ে কাজ করেছেন, এমন বিশেষজ্ঞরা ট্রাম্পের পররাষ্ট্র টিমে রয়েছেন।

যুক্তরাষ্ট্রীয় সময় সোমবার ডোনাল্ড ট্রাম্প পররাষ্ট্র নীতিবিষয়ক উপদেষ্টা হিসেবে যাদের নাম ঘোষণা করেন, তারা হলেন- লে. জেনারেল (অব.) কেইথ কেলগ, কার্টার পেজ, জর্জ পাপাডোপোলোস, ওয়ালিদ ফারেস এবং জেনারেল (অব.) জোসেফ স্কিমিৎজ।

এ টিমের নেতৃত্ব দেবেন আলাবামার সিনটর জেফ সেশনস। ট্রাম্পের পররাষ্ট্রনীতি তৈরিতে জেফ সেশনস সাহযোগিতা করেছেন। লক্ষ্যনীয় ব্যাপার হলো- এতদিন বলাবলি হচ্ছিল, ট্রাম্পকে কে পররাষ্ট্রনীতি তৈরিতে সহযোগিতা করেছেন? এ প্রশ্নের উত্তরে ট্রাম্প বলে যাচ্ছিলেন, তিনি তার পররাষ্ট্রনীতির পরিকল্পনাকারী। শেষ পর্যন্ত জানা গেল, সেই ব্যক্তি জেফ সেশনস।

ট্রাম্পের পররাষ্ট্র উপদেষ্টাদের মধ্যে কারো কারো বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ রয়েছে। আবার কেউ কেউ স্ব স্ব ক্ষেত্রে খুবই অভিজ্ঞ। একজনরে দেখে নেওয়া যাক-

জেনারেল (অব.) জোসেফ স্কিমিৎজ : ২০০৫ সালে অসদাচরণের জন্য সেনাবাহিনী থেকে বাধ্যতামূলক অসবরে যান তিনি। তবে তিনি প্রতিরক্ষা বিভাগের মহাপরিদর্শক ছিলেন।

ওয়ালিদ ফারেস : ২০১১ সালে মিট রমনির পররাষ্ট্র উপদেষ্টা হিসেবে তার নাম ঘোষণার পর কঠোর সমালোচনা হয়েছিল। লেবাননের গৃহযুদ্ধে তিনি খ্রিষ্টান মিলিশিয়াদের পক্ষে কাজ করেছিলেন। তা ছাড়া শরিয়্যাহ ও ইসলামি আইনের কঠোর সমালোচক তিনি। তাকে মধ্যপ্রাচ্যবিষয়ক বিশেষজ্ঞ বলা হয়। ন্যাশনাল ডিফেন্স ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক ওয়ালিদ ফারেস। তা ছাড়া কংগ্রেস সদস্যদের উপদেষ্টা হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন তিনি।

লে. জেনারেল (অব.) কেইথ কেলগ : ইরাক যুদ্ধের সময় পল ব্রেমারের নেতৃত্বে কোয়ালিশন প্রোভিশনাল অথরিটির অধীনে কাজ করেন তিনি।

কার্টার পেজ : জ্বালানি শিল্প কারখানায় দীর্ঘদিন কাজ করেছেন। তা ছাড়া কাস্পিয়ান সাগর অঞ্চলের অর্থনীতি বিষয়ে অভিজ্ঞ ও সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নভুক্ত দেশগুলোর অর্থনীতি বিষয়ে বিশেষজ্ঞ তিনি।

জর্জ পাপাডোপোলোস : লন্ডনভিত্তিক আন্তর্জাতিক জ্বালানি ও প্রাকৃতিক সম্পদবিষয়ক আইন ও নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠানের পরিচালক তিনি। হাডসন ইনস্টিটিউটের রিসার্চ ফেলে।