মেইন ম্যেনু

ঠাণ্ডায় তাইওয়ানে ৫০ জনের মৃত্যু

পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোতে চলছে শৈত্য প্রবাহ। তাইওয়ানে অতিরিক্ত ঠাণ্ডার কারণে ৫০ জনের বেশি মানুষ মারা গেছেন। দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার কারণে জাপানে মারা গেছেন আরো পাঁচজন। এছাড়া তুষারপাতের কারণে দক্ষিণ কোরিয়ায় আটকা পড়েছে ৬০ হাজারের মত পর্যটক।

তাইওয়ানের সংবাদ মাধ্যমের বরাত দিয়ে বিবিসি জানিয়েছে, হঠাৎ করে তাপমাত্রা নেমে যাওয়ায় দেশের লোকজন হৃদরোগসহ নানা ধরনের শারীরিক জটিলতায় আক্রান্ত হতে শুরু করেছে। গত কয়েক দিনের ঠাণ্ডায় মারা গেছেন ৫০ জনের বেশি মানুষ। প্রচণ্ড শীতে দেশটিতে যারা মারা গেছেন তাদের বেশিরভাগই বয়স্ক। দেশটির উত্তরাঞ্চীয় তাইপে, কাওহসিউয়ং ও তাওইউয়ান অঞ্চলে এসব মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। রোববার দেশটির উত্তরাঞ্চলীয় এলাকাগুলোর তাপমাত্রা ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নেমে এসেছে বলে জানা গেছে।

এ অবস্থায় তাইওয়ান সরকার সে দেশের লোকজন বিশেষ করে বয়স্কদের গরম পোশাক পরিধান করতে ও ঠাণ্ডা এড়িয়ে চলার পরামর্শ দিয়েছে।

শুধু তাইওয়ান নয়, পূর্ব এশিয়ার অন্যান্য দেশগুলোতেও প্রচণ্ড শীত পড়েছে। তুষারপাতের কারণে দক্ষিণ কোরিয়ার জেজু দ্বীপের বিমানবন্দরটি বন্ধ করে দিতে বাধ্য হয়েছেন কর্তৃপক্ষ। বাতিল করা হয়েছে ওই বিমানবন্দরের পাঁচ শতাধিক আন্তর্জাতিক ও আভ্যন্তরীণ ফ্লাইট। ফলে ওই দ্বীপটিতে আটকা পড়েছে ৬০ হাজারের মত পর্যটক।

একই অবস্থা বিরাজ করছে হংকং, জাপান ও চীনের দক্ষিণ অংশে। তুষারপাতের কারণে জাপানে কমপক্ষে পাঁচজন প্রাণ হারিয়েছে। আহত হয়েছে আরো শতাধিক মানুষ।