মেইন ম্যেনু

ডাক্তাররা ভেবেছিলেন শিশুটির ফ্লু হয়েছে কিন্তু স্ক্যান করাতেই ধরা পড়ল ভয়ঙ্কর সত্য

স্ক্যান করার পর দেখা যায়, ব্র্যাডের ক্ষুদ্রান্তের কাছে দানা বেঁধে রয়েছে কোনও অদ্ভুত জিনিস। ব্র্যাডকে জিজ্ঞাসা করায় সে এক ভয়ঙ্কর সত্য উদ্ঘাটন করে।

আমেরিকার ওকলাহোমা সিটি নিবাসী শেন ও পেগি ওয়েস্টফ্যালের ১০ বছর বয়সি পুত্র ব্র্যাডি দিন কয়েক আগে পে়টের যন্ত্রণা ও জ্বরে আক্রান্ত হয়। শেন ও পেগি ছেলেকে নিয়ে যান ডাক্তারের কাছে। উপসর্গ দেখে ডাক্তাররা প্রথমে ভেবেছিলেন, ব্র্যাডির স্টমাক ফ্লু হয়েছে। সেই অনুযায়ী চিকিৎসাও শুরু হয়। কিন্তু ব্র্যাডির শারীরিক অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় ডাক্তাররা তার সিটি স্ক্যান ও এন্ডোস্কোপি করার সিদ্ধান্ত নেন। স্ক্যান করার পর দেখা যায়, ব্র্যাডের ক্ষুদ্রান্তের কাছে দানা বেঁধে রয়েছে কোনও অদ্ভুত জিনিস। ব্র্যাডকে জিজ্ঞাসা করায় সে এক ভয়ঙ্কর সত্য উদ্ঘাটন করে। সে জানায়, গত কয়েকদিন ধরে একটি একটি করে মোট ৮টি চুম্বক সে গলাধঃকরণ করেছে।

ওকলাহোমা ইউনিভার্সিটি মেডিকাল সেন্টারের ডাক্তাররা এ্ররপর অপারেশনের সাহায্যে ব্র্যাডের পেট থেকে চুম্বকগুলি উদ্ধার করেন। মোট ৮টি চুম্বকই পরস্পর সংযুক্ত অবস্থায় বার হয় ব্র্যাডের শরীর থেকে।

হাসপাতালের ডাক্তার জন গ্রানো জানান, ব্যাপারটা মারাত্মক আকার নিতে পারত। এমনকী এই চুম্বক খাওয়ার অভ্যাসের ফলে মৃত্যুও হতে পারত ওই শিশুর। অপারেশনের সময়ে দেখা গিয়েছে, সারিবদ্ধ চুম্বকগুলি ব্র্যাডের ক্ষুদ্রান্তকে ক্ষতবিক্ষত করতে করতে তলপেটের দিকে এগিয়ে গিয়েছে। ডাক্তার গ্রানো বিশ্লেষণ করে বলেন, ‘যদি আলাদা আলাদা সময়ে একটি একটি করে চুম্বক খাওয়া হয়, তাহলে চুম্বকগুলি পেটে গিয়ে একে অন্যের সঙ্গে জুড়ে যায়। এর ফলে দু’টি চুম্বকের মাঝে আটকে যায় পেটের অভ্যন্তরের কিছু টিস্যু। পরিণামে রক্তসঞ্চালনের অভাবে ওই টিস্যুগুলি মারা যায়। এরকমটা যদি একটানা বেশি দিন চলে তাহলে রোগীর মৃত্যুও হতে পারে।’

আপাতত সুস্থ ব্র্যাডি জানিয়েছে, এক পারিবারিক আত্মীয়ের বেড়াতে গিয়ে সে চুম্বকগুলি পেয়েছিল। তারপর একটি একটি করে কয়েকদিন ধরে সে চুম্বকগুলি খেয়ে ফেলে। কিন্তু কেন সে খেল চুম্বকগুলি? সে কি জানত না যে চুম্বক খাদ্য নয়? ‘জানতাম। কিন্তু চুম্বক খেতে আমার ভাল লাগত। আমি বুঝতে পারতাম, আমার পেটের মধ্যে ওগুলো রয়েছে।’ জানিয়েছে ব্র্যাডি।

ডাক্তারদের চিন্তার কারণ এটাই যে, এরকম মারাত্মক বদভ্যাসে একা ব্র্যাডিই আক্রান্ত নয়। ডাক্তার গ্রানো জানান, চুম্বক খেয়ে অসুস্থ হয়ে পড়া শিশুদের সংখ্যা দেশে ক্রমাগত বাড়ছে। চিকিৎসার সূত্রে সারা দেশেই এই ধরনের শিশুর সন্ধান পেয়েছেন তিনি। বিষয়টির মনস্তাত্ত্বিক ব্যাখ্যা যেমন প্রয়োজন, তেমনই প্রয়োজন বাবা-মায়ের প্রাসঙ্গিক সতর্কতাও, বলছেন গ্রানো।-এবেলা