মেইন ম্যেনু

ডাক্তার-নার্সদের ধর্মঘট বন্ধে হাইকোর্টের রুল

রোগীর জীবন রক্ষায় ডাক্তার ও নার্সদের ডিউটিকালীন সময়ে ধর্মঘট বন্ধে ব্যবস্থা নিতে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট।

সোমবার এক রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে বিচারপতি সৈয়দ মোহাম্মদ দস্তগীর হোসেন ও বিচারপতি এ কে এম সাহিদুল হকের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ রুল জারি করেন।

রুলে হাসপাতাল এলাকায় রোগী বা রোগীর স্বজন কর্তৃক চিকিৎসক ও নার্সদের ওপর আঘাতের ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না তাও জানতে চাওয়া হয়েছে।

একইসঙ্গে হাসাপাতালের ডাক্তার ও নার্সদের ধর্মঘট রোধে বিবাদীদের নিষ্ক্রিয়তা কেন বেআইনি ঘোষণা করা হবে না তাও জানতে চাওয়া হয়েছে রুলে।

এর আগে ২৯ মে ডাক্তার ও নার্সদের ধর্মঘট রোধে নিষ্ক্রিয়তা চ্যালেঞ্জ করে মানবাধিকার সংগঠন হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশের পক্ষে চার আইনজীবী এ বিষয়ে তিন দফা নির্দেশনা চেয়ে রিট আবেদনটি করেন।

আদালতে রিট আবেদনের পক্ষে শুনানিতে অংশ নেন আইনজীবী মনজিল মোরসেদ। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল অরবিন্দ কুমার রায়।

স্বাস্থ্য সচিব, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক, পুলিশের মহাপরিদর্শক ও রাজধানীর সরকারি হাসপাতালগুলোর পরিচালকসহ ২৩ বিবাদীকে দুই সপ্তাহের মধ্যে এসব রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

আইনজীবী মনজিল মোরসেদ জানান, ‘হাসপাতালে চিকিৎসক ও নার্সদের ধর্মঘটের ফলে বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসারত রোগী ও তাদের স্বজনদের সীমাহীন ভোগান্তি পোহাতে হয়। বিভিন্ন কারণে বিভিন্ন সময় চিকিৎসক ও নার্সরা কর্মবিরতিতে যান। এ বিষয়ে পত্রিকায় বিস্তারিত সংবাদ প্রকাশিত হয়। এই অবস্থা বিবেচনায় তিন দফা নির্দেশনা চেয়ে রিটটি করা হয়।’