মেইন ম্যেনু

ঢাকা-মদিনা সরাসরি ফ্লাইট চালুর দাবি হাজিদের

পবিত্র হজ পালন শেষে এখন পর্যন্ত ৮০ হাজারেরও বেশি হজযাত্রী দেশে ফিরেছেন। আগামী ১৭ অক্টোবর (সোমবার) হাজিদের ফিরতি ফ্লাইট শেষ হবে। চলতি বছর ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সার্বিক ব্যবস্থাপনায় সরকারি ও বেসরকারি হজযাত্রীরা অন্যবারের চেয়ে তুলনামূলক সন্তুষ্ট। তবে হজ থেকে অনেক হাজি মদিনা থেকে ঢাকা সরাসরি ফ্লাইটের দাবি জানিয়েছেন।

এ প্রতিবেদকের সঙ্গে আলাপকালে তারা বলেন, বর্তমান ব্যবস্থায় হজযাত্রীদের জেদ্দা বিমানবন্দরে নেমে তারপর মদিনা যেতে হচ্ছে। ফলে কমপক্ষে ছয় ঘণ্টা সময়, টাকা ও শারিরিক ধকল যাচ্ছে। আবার যারা জেদ্দা হয়ে মক্কায় যাচ্ছেন তারা হজ করে মদিনা হয়ে সরাসরি দেশে ফিরতে পারলে কষ্ট কম হতো। সরাসরি ফ্লাইট না থাকায় হাজিদের বিশেষ করে বয়স্ক হজযাত্রীদের শরীরের উপর বড় ধকল পড়ছে।

এ প্রসঙ্গে ধর্ম মন্ত্রণালয়েরর সিনিয়র তথ্য কর্মকর্তা ও বর্তমানে জেদ্দা বিমানবন্দরে মৌসমুী সহকারী হজ অফিসার হিসেবে দায়িত্বরত মোহাম্মদ আনোয়ার হোসাইন বলেন, হাজিদের সুবিধার্থে মদিনা থেকে সরাসরি ফিরতি হজ ফ্লাইট চালুর দাবি যৌক্তিক। প্রতিবেশী দেশ ভারত ও পাকিস্তান ইতোমধ্যেই তাদের কিছু ফ্লাইট মদিনা থেকে চালু করেছে। মদিনা থেকে ফ্লাইট চালু করা এখন হজ ব্যবস্থাপনার বড় চ্যালেঞ্জ।

পুরান ঢাকার লালবাগের বাসিন্দা ও হজযাত্রী সোহেল রহমান জানান, তিনি তার বৃদ্ধ বাবা-মাকে নিয়ে এবার হজে যান। জেদ্দা বিমানবন্দরে নেমে ছয় ঘণ্টা গাড়িতে মদিনায় যান। পরে মক্কায় হজ শেষে জেদ্দা হয়ে দেশে ফেরেন। সরাসরি ফ্লাইটটি মদিনায় গেলে ছয় ঘণ্টা কষ্ট কমতো বলে জানান তিনি।

ধর্ম মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছর সরকারি ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় মোট ১ লাখ ১ হাজার ৮২৯ জন হজ করেছেন। মঙ্গলবার (১১ অক্টোবর) পর্যন্ত হজ পালন শেষে দেশে প্রত্যাবর্তন করেছেন ৮০ হাজার ৪২২ জন হাজি। বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ১০৫টি ও সৌদিয়া এয়ারলাইন্সের ১২৩টিসহ মোট ২২৮টি ফিরতি ফ্লাইটে তারা দেশে ফিরেছেন।

অন্যদিকে, চলতি বছর হজে গেয়ে ইন্তেকাল করেছেন মোট ৮২ জন হজযাত্রী। তাদের মধ্যে ৬২ জন পুরুষ ও ২০ জন মহিলা রয়েছেন। মোট হাজির মধ্যে মক্কায় ৬২ জন, মদিনায় ১৩ জন, জেদ্দায় ২ জন এবং মিনায় ৫ জন মারা যান। সর্বশেষ গত ৮ অক্টোবর মক্কাতে ঢাকা জেলার খাদিজা বেগম (৭২) (পাসপোর্ট নম্বর- বি কে ০৫৯৮১৮৫) ইন্তেকাল করেন।

উল্লেখ্র, গত ৪ আগস্ট চলতি বছরে প্রথম হজ ফ্লাইট সৌদিআরব যায় এবং ৬ সেপ্টেম্বর ছিল বাংলাদেশ থেকে সৌদিআরব যাত্রার শেষ ফ্লাইট। হজ শেষে গত ১৭ সেপ্টেম্বর (শনিবার) থেকে চালু হয় ফিরতি হজ ফ্লাইট।- জাগো নিউজ