মেইন ম্যেনু

‘তনু হত্যার’ অভিনব প্রতিবাদ

বহুল আলোচিত কুমিল্লার ভিক্টোরিয়া কলেজের ছাত্রী সোহাগী জাহান তনু হত্যাকাণ্ডের বিচারের দাবিতে সারাদেশ যখন উত্তাল। ঠিক তখনই প্রবাস থেকেও চিত্রের মাধ্যমেও অভিনব প্রতিবাদ করেছেন তরুন এক চিত্রশিল্পী জাহেদুর রহমান রবিন। তার আঁকা প্রতিটা চিত্রের মাধ্যমে তুলে ধরা হয়েছে রক্তাক্ত তনুকে। ইতোমধ্যে তার আঁকা প্রতিটি ছবি ফেসবুকে ব্যাপক ছড়াছড়ি হয়েছে। চিত্রশিল্পী জাহেদুর রহমান রবিন বর্তামানে মরুভূমীর দেশ দুবাইতে অবস্থান করছেন।

মুঠোফোনে তার সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, তনুকে ধর্ষণের পর হত্যার করে যখন আসামিরা মুগ্ধ, সারাদেশ তখন কান্নায় বধির। দেশের কোথাও না কোথাও প্রতিদিন একজন করে নারী ধর্ষিত হচ্ছে। তার কোন সুষ্ঠু বিচার কেউ পাচ্ছে না। যেখানে মানুষ সর্বোচ্চ নিরাপদ থাকার কথা সেই ক্যান্টনমেন্টের মতো একটা এলাকায় তনুকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছে। এমনকি আজও কাউকে বিচারের মখোমুখি করা সম্ভব হয়নি। তাহলে কেমন আছে আমার দেশ?

তনুকে ধর্ষণের পর নির্মমভাবে হত্যাই প্রমাণ করে নারীরা আজ আমাদের সমাজে কতটা নিরাপত্তাহীন ও ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। এ সমস্ত ধর্ষণ, খুন ও নারীর প্রতি সহিংসতার বিরুদ্ধে সোচ্চার ভুমিকা রাখতে হবে। সারাদেশ আজ তনু হত্যার বিচার দাবিতে সোচ্চার হয়েছে। খুনি ধর্ষকরা যতোই শক্তিশালী হোক না কেন তাদের বিচারের আওতায় আনতে হবে। অবিলম্বে সোহাগী জাহান তনুর হত্যাকারীদের গ্রেপ্তার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান রবিন।

তিনি আরো বলেন, পোষাক কখনো ধর্ষণের জন্য দায়ী নয়। দায়ী মানুষের হিংসাত্মক রুচীবোধ। পোষাক যদি দায়ী হতো তাহলে তনুতো সবদিকে পরিপূর্ণভাবে হিজাব পালন করেছে। তাহলে সে কেন ধর্ষণ হলো?
রবিন আরো বলেন, দেশের রাজনীতি নিয়ে আমার কোন প্রশ্ন নেই। রাজনীতি যাইহোক দেশের মানুষ যেভাবে ভালো থাকে সেটাই সবচেয়ে বড়প্রাপ্তি বলে আমি মনে করি।

যতদিন পর্যন্ত তনুর হত্যাকারীদের গ্রেফতার ও বিচার না করা হয় তথদিন আমার এই চিত্রের মাধ্যমে প্রতিবাদ অব্যাহত থাকবে। আর সেই চিত্র ফেসবুকে মহামারি আকারে বিস্ত্রিত হতে থাকবে। দেশের সব খুন ও ধর্ষণের ঘটনায় জড়িতদেরও সর্বোচ্চ শাস্তি দাবি করেন জাহেদুর রহমান রবিন।