মেইন ম্যেনু

তনু হত্যার রিট নিয়মিত বেঞ্চে

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজছাত্রী সোহাগী জাহান তনুর হত্যাকাণ্ডের বিচার বিভাগীয় তদন্ত, খুনিদের গ্রেফতার ও নিহতের পরিবারকে ক্ষতিপূরণ প্রদানের নির্দেশনা চেয়ে করা রিট নিয়মিত বেঞ্চে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

সোমবার বিচারপতি সালমা মাসুদ চৌধুরী ও বিচারপতি মো. সেলিমের অবকাশকালীন বেঞ্চ এ আদেশ এ আদেশ দেন।

এর আগে ১২, ১৮ ও ২০ এপ্রিল আবেদনটি কার্যতালিকা থেকে বাদ (আউট অব লিস্ট) দিয়েছিলেন হাইকোর্টের ভিন্ন তিনটি বেঞ্চ। এরপর আবেদনকারীর আইনজীবী অ্যাডভোকেট ইউনুছ আলী আকন্দ বিচারপতি সালমা মাসুদ চৌধুরীর নেতৃত্বাধীন বেঞ্চে নিয়ে যান। পরে আদালত মামলাটি সুপ্রিম কোর্টের অবকাশ শেষে (২ মে খুলবে সুপ্রিম কোর্ট) নিয়মিত বেঞ্চে পাঠানোর আদেশ দেন।

সোমবার আদালতে আবেদনকারী আইনজীবী ইউনুছ আলী আকন্দ উপস্থিত ছিলেন। আদালত থেকে বেরিয়ে তিনি বলেন, অবকাশকালীন কোর্ট শেষে নিয়মিত বেঞ্চে এ আবেদনটি উপস্থাপন করব।

এর আগে গত ৩ এপ্রিল সকালে এ রিট আবেদনটি দায়ের করেন আইনজীবী ড. ইউনুছ আলী আকন্দ।

প্রসঙ্গত, ২০ মার্চ রাতে কুমিল্লা ক্যান্টনমেন্টের অলিপুর এলাকার কালা ট্যাংকি-সংলগ্ন জঙ্গল থেকে কলেজছাত্রী তনুর মরদেহ উদ্ধার করা হয়। তাকে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয় বলে অভিযোগ করেন নিহতের পরিবার। এ ঘটনায় খুনিদের গ্রেফতার না করায় এ রিট আবেদন করা হয় বলে জানান সুপ্রিম কোর্টের এ আইনজীবী।

রিট আবেদনে হত্যার তদন্তে বিচার বিভাগীয় কমিটি, পরিবারকে হয়রানি না করা, ৩০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ প্রদানসহ নারীদের নিরাপত্তাবিধানের নির্দেশনা চাওয়া হয়েছে।

আবেদনে স্বরাষ্ট্র সচিব, মন্ত্রিপরিষদ সচিব, প্রতিরক্ষা সচিব, পুলিশের মহাপরিদর্শক, কুমিল্লার পুলিশ সুপার ও কোতোয়ালি থানার ওসিসহ সংশ্লিষ্ট আটজনকে বিবাদী করা হয়েছে।