মেইন ম্যেনু

তাভেল্লা খুন: এ মাসেই চার্জশিট, আসামি বিএনপির একাধিক নেতা

ইতালীয় নাগরিক তাভেল্লা সিজার হত্যা মামলার তদন্ত কাজ শেষ পর্যায়ে। এমাসের শেষের দিকে চার্জশিট (অভিযোগপত্র) দাখিল করবে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। আসামি হিসেবে ঢাকা মহানগর বিএনপির এক বা একাধিক নেতার নাম আসতে পারে বলে জানা যাচ্ছে।

গত বছরের ২৮ সেপ্টেম্বর গুলশানে ইতালির নাগরিক তাভেল্লা সিজারকে গুলি করে হত্যা করা হয়। তিনি নেদারল্যান্ডসভিত্তিক আইসিসিও নামের একটি প্রতিষ্ঠানের গ্রুপ কর্মসূচির প্রকল্প (প্রফিটেবল অপরচুনিটিজ ফর ফুড সিকিউরিটি) ব্যবস্থাপক ছিলেন। পুলিশের হাত ঘুরে এই মামলার তদন্তভার যায় ডিবি উত্তর বিভাগের হাতে।

রোববার এ মামলার তদন্ত প্রতিবেদনের অগ্রগতি নিয়ে কথা হয় ডিবির ডিসি (উত্তর) শেখ নাজমুল আলমের সাথে। তিনি বলেন, ‘ইতালীয় নাগরিক তাভেল্লা সিজার হত্যা মামলার তদন্ত প্রতিবেদন এ মাসের শেষ দিকে আদালতে দেয়া হবে।’

তিনি আরো বলেন, ‘এই মামলায় এরমধ্যে পাঁচ জনকে আটক করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এছাড়াও আরো ৩ থেকে ৪ জনের নাম আসতে পারে। এদের মধ্যে বিএনপির ঢাকা মহানগরীর এক বা একাধিক শীর্ষ নেতার নাম থাকতে পারে।’ তবে এখনও হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত অস্ত্রটি উদ্ধার করা যায়নি বলে জানান ডিবির ওই কর্মকর্তা।

তদন্ত সূত্রে জানা যায়, তাভেল্লা সিজার হত্যার ঘটনায় সন্দেহভাজন হিসেবে পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করে ডিবি। তাদের মধ্যে চারজন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। সর্বশেষ এই মামলায় গ্রেপ্তার করা হয় বিএনপি নেতা সাবেক কমিশনার এম এ কাইয়ুমের ছোট ভাই এম মতিনকে। কাইয়ুম বর্তমানে মালয়েশিয়ায় অবস্থান করছেন। তিনি সেখান থেকেই কলকাঠি নেড়েছেন বলে দাবি করা হয়।

এর আগে, সন্দেহভাজন হিসেবে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল রাসেল চৌধুরী ওরফে চাক্কী রাসেল ওরফে বিদ্যুৎ রাসেল, মিনহাজুল আরিফিন রাসেল ওরফে ভাগ্নে রাসেল ওরফে কালা রাসেল, তামজিদ আহম্মেদ রুবেল ওরফে শুটার রুবেল ও শাখাওয়াত হোসেন ওরফে শরিফকে।

পুলিশ তখন দাবি করেছিল, এদের মধ্যে শুটার রুবেল তাভেল্লাকে গুলি করে। হত্যার পর রাসেল, মিনহাজুল ও রুবেল মোটরসাইকেলে ঘটনাস্থল থেকে পালায়। কিলিং মিশনে ব্যবহৃত এফজেড ব্র্যান্ডের মোটরসাইকেল উদ্ধার করা হয়েছে। সেটির মালিক শরিফ।

গত বছরের ২৮ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যা সোয়া ৬টা থেকে সাড়ে ৬টার মধ্যে রাজধানীর গুলশান-২ নম্বরের ৯০ নম্বর সড়কের গভর্নর হাউজের দক্ষিণের দেয়াল ঘেঁষা ফুটপাতে তাভেল্লা সিজারকে গুলি করে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। এর সপ্তাহখানেক পর রংপুরের আলুটারি এলাকায় গত বছরের ৩ অক্টোবর সকাল সাড়ে ১০টার দিকে জাপানি নাগরিক হোশি কোনিও খুন হোন। সেসময় পরপর দুই বিদেশি খুন হওয়ার ঘটনায় বাংলাদেশে বিদেশি দূতাবাসগুলো থেকে নিজ নিজ নাগরিকদের ভ্রমণ সতর্কতা জারি করা হয়েছিল।