মেইন ম্যেনু

তাসকিনের জায়গায় শুভাগত

অবৈধ বোলিং অ্যাকশনের কারণে স্পিনার আরাফাত সানী ও পেসার তাসকিন আহমেদকে বোলিংয়ে নিষিদ্ধ করেছে আইসিসি। এর ফলে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপও শেষ হয়ে গেছে বাংলাদেশের এই দুই ক্রিকেটারের।

শনিবার দুপুরেই টিম ম্যানেজমেন্ট সূত্র জানা যায়, আরফাত সানীর বদলে আরেক বাঁহাতি স্পিনার সাকলাইন সজীবকে দেশ থেকে উড়িয়ে নিয়ে আসা হচ্ছে। বিকালে তাসকিন আহমেদের বোলিং অ্যাকশন অবৈধ ঘোষণার পর তার বদলি স্পিন অলরাউন্ডার শুভাগত হোমকে বেছে নিয়েছে হিসেবে টিম ম্যানেজমেন্ট।

জানা জানা গেছে, সজীব ও শুভাগত হোম একই ফ্লাইটে ঢাকা ছাড়বেন। কলকাতা হয়ে বেঙ্গালুরু পৌঁছাতে পৌঁছাতে তাদের রাত হয়ে যাবে। তবে যতটুকু ধারণা করা যাচ্ছে সোমবার অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ম্যাচে তাদের কাউকেই নামানো হবে না।

২০০৮ সালের নভেম্বরে সর্বপ্রথম বাংলাদেশের বোলারদের মধ্যে আব্দুর রাজ্জাকের বোলিং অ্যাকশন নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন আইসিসি। বোলিং অ্যাকশন শুধরে পাঁচ মাস পর ২০০৯ সালের মার্চে আবারও ক্রিকেটে ফেরেন রাজ্জাক।

এরপর ২০১৪ সালে পেসার আল-আমিনের বোলিংয়ে ক্রুটি পায় আইসিসি। বোলিং অ্যাকশন শুধরে আল-আমিন এখন নিয়মিত খেলে যাচ্ছেন। আরেক অফস্পিনার সোহাগ গাজী একই বছরের অক্টোবরে বোলিং অ্যাকশনের কারণে নিষিদ্ধ হন। ২০১৫ সালের ফেব্রুয়ারিতে আইসিসির সবুজ সংকেত পেয়ে আবারও ক্রিকেটে ফিরে আসেন সোহাগ গাজী।