মেইন ম্যেনু

তাসকিন-সানির পর নতুন টার্গেট মাশরাফি!

এশিয়া কাপের আসরের পর থেকে বাংলাদেশের শক্তিশালী দুই বোলারের দিকে নজর পড়ে ভারতের। যার বলিদান তাদের দিতে হল। আরাফাত সানির বোলিং অ্যাকশন অবৈধ হলেও হতে পারে কিন্তু তাসকিনের ব্যাপারে ঘোরতর সন্দেহ রয়েছে এবং আইসিসি যেভাবে পদক্ষেপ নিয়ে কাজ করেছে সেটাও প্রশ্নবিদ্ধ!

এবার মনে হয় তাদের আগামী নিশানা টাইগার ক্যাপ্টেন মাশরাফির উপর! তারা জানে গত দেড়বছর ধরে বাংলাদেশের যে পরিবর্তন হয়েছে তার মূলে আমাদের ক্রিকেট দলের সেনাপতি মাশরাফি বিন মুর্তজা। আর তাই তাকে যদি সমালোচনা ও চাপের মাঝে রাখা যায় তাহলে বাংলাদেশের পারফরম্যান্স অবশ্যই খারাপ হবে। তাই ভারতীয়দের এখন নতুন টার্গেট মাশরাফি বিন মর্তুজা। সে দেশের মিডিয়া ফলাও করে প্রচার করছে যে গতকাল মাশরাফির জন্য দল হেরেছে। মাশরাফির ভুল সিদ্ধান্তের খেসারত দিতে হয়েছে বাংলাদেশ দলকে। যা আজ বাংলাদেশের বেশিরভাগ গণমাধ্যমে ফলাও করে প্রচার করা হয়েছে।

গতকাল খেলার শেষে এক পর্যায়ে সুনীল গাভাস্কার বলেন, দলে মাশরাফির ভূমিকা কি? অজিদের বিপক্ষে সে একটি ওভার বল করেছে। ব্যাট করার প্রয়োজন হয়নি তার। তাহলে সে দলে কেন? অধিনায়কত্ব? ঠিক আছে,কিন্তু সে সঠিকভাবে তার দায়িত্ব পালন করতে পারেনি, খুবই অর্ডিনারি।

টাইগারদের দলপতিকে নিয়ে এমন সমালোচনায় মেতে উঠা গাভাস্কার ভারতকে নেতৃত্ব দিয়ে কতটুকু সফল ছিলেন!

গাভাস্কার ভারতকে নেতৃত্ব দিয়েছেন ওয়ানডেতে গাভাস্কার ৩৭ ম্যাচে ভারতকে নেতৃত্ব দিয়ে দলকে জেতাতে পেরেছিলেন ১৪ ম্যাচে। আর তার নেতৃত্বে ভারত হেরেছিল ২১টি ম্যাচে। বাকি দুইটি ম্যাচে কোনো ফল আসেনি। যেখানে তার সাফল্যের হার শতকরা ৪০। পক্ষান্তরে মাশরাফি ওয়ানডেতে টাইগারদের ২৮ ম্যাচে নেতৃত্ব দিয়েছেন। তাতে লাল-সবুজরা জিতেছে ২০ ম্যাচে আর হেরেছে মাত্র ৮টি ম্যাচে। এখানে ম্যাশের সফলতার হার শতকরা ৭১.৪২। টাইগারদের ২১টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচে মাশরাফি নেতৃত্ব দিয়েছেন। তার মাঝে ৯টি ম্যাচেই শেষ হাসি বাংলাদেশের। মাশরাফির অধীনে ১১টি ম্যাচ হারলেও ম্যাশের সফলতার হার শতকরা ৪৫।

মাশরাফি বাংলাদেশের সর্বকালের সেরা অধিনায়ক এটা বলার কোন অপেক্ষা রাখে না। তার মত আরেকজন আগামী এক শতাব্দীতে ফিরে আসবে কিনা জানা নেই। তবে তাকে নিয়েও ষড়যন্ত্র এদেশের মানুষ কখনও মেনে নিবে না।