মেইন ম্যেনু

ত্বক ফর্সা ও খুশকি দূর করতে দই অতুলনীয়

দই খাবার হিসেবে অনেক জনপ্রিয় এবং পুষ্টিকর। তাছাড়া এর স্বাস্থ্যগুণও অনেক বেশি। জানেন কী রুপচর্চায়ও দই অনেক উপকারী। বিশেষ করে চুল ও ত্বকের যত্নে দই অতুলনীয়।চলুন জেনে নেয়া যাক রুপচর্চায় দইয়ের কিছু ব্যবহার।

চুলের খুশকি দূর: কয়েক ফোঁটা লেবুর রস এবং এক চিমটি লবণের সঙ্গে অল্প পরিমাণে দই মিশিয়ে নিন। মিশ্রণটি চুলের গোড়ায় ব্যবহার করুন। পরিবর্তনটা আপনি নিজেই বুঝতে পারবেন। তাছাড়া, কয়েক ফোঁটা অলিভ অয়েলের সঙ্গে দই মিশিয়ে মাথায় ব্যবহার করতে পারেন।

প্রাকৃতিক এক্সফলিয়েটর: দইয়ের মধ্যে থাকা ল্যাকটিক অ্যাসিড ত্বকের ব্রণ এবং দাগ দূর করে ত্বককে মসৃণ করে তোলে। যবের গুড়ো, ডিমের সাদা অংশের সঙ্গে দই মিশিয়ে ব্যবহার করুন এবং এটি আপনার ত্বকের জন্য প্রাকৃতিক এক্সফলিয়েটর হিসেবে কাজ করে।

ফর্সা ত্বক: দই একটি চমৎকার ত্বক ফর্সাকারী উপাদান। কমলার খোসার সঙ্গে দই মিশিয়ে ব্যবহার করুন। ত্বকের তামাটে এবং কালো বর্ণ দূর হয়ে যাবে। ত্বক উজ্জল করবে।

ঠোঁটফাটা রোধ: গ্রীষ্মেও আমাদের ঠোঁট শুষ্ক হয়ে পড়ে এবং ফেটে যায় অনেক সময়। এই সমস্যা থেকে পরিত্রাণ পেতে জাফরান ফুলের পাঁপড়ির সঙ্গে দই মিশিয়ে ব্যবহার করুন। ২০ মিনিট পর দেখবেন ঠোঁট স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে এসেছে।তাছাড়া, দইয়ের সঙ্গে সরিষার তেল মিশিয়ে দিনে দুই বার ঠোঁটে ব্যবহার করে দেখতে পারেন।কিছুদিন পর ঠোঁটের রঙে আমূল পরিবর্তন লক্ষ্য করবেন।