মেইন ম্যেনু

থাইল্যান্ডজুড়ে শোকের মাতম

রাজা ভূমিবল আদুলিয়াদেজের মৃত্যুতে থাইল্যান্ডজুড়ে চলছে শোকের মাতম। বিশ্বের ইতিহাসে সবচেয়ে দীর্ঘ সময় ধরে ক্ষমতায় থাকা থাইল্যান্ডের এই রাজা বৃহস্পতিবার ৮৮ বছর বয়সে মারা গেছেন।

বৃহস্পতিবার গভীর রাতেই শোকার্ত মানুষ রাস্তায় বেরিয়ে পড়ে মোমবাতি প্রজ্জ্বলন করেন। শুক্রবার সকাল থেকে কালো পোশাকে মানুষ আবারো রাস্তায় জড়ো হতে শুরু করেছেন।

শুক্রবার বিকেলের দিকে রাজার মরদেহ এমেরাল্দ মন্দিরে নেয়া হবে। রাষ্ট্রীয়ভাবে এক বছর শোক পালন করবে থাইল্যান্ড।

ক্রাউন প্রিন্স মহা ভাজিরালংকর্ন থাইল্যান্ডের নতুন রাজা হবেন। কিন্তু দায়িত্ব নেয়ার আগে কিছুটা সময় চেয়েছেন তিনি।

আগামী ৩০ দিন থাইল্যান্ডে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখা হবে। সরকারের তরফ থেকে সবাইকে কালো পোশাক পরিধানের আহ্বান জানানো হয়েছে এবং গোটা সময়টাতে উৎসব আয়োজন এড়িয়ে যাওয়ার কথাও বলা হয়েছে।

দেশটির গণমাধ্যমগুলোর অনলাইন সংস্করণে আনা হয়েছে সাদা ও কালো রঙের মিশেল। এছাড়া বিশ্বনেতারাও শ্রদ্ধা জানিয়েছেন সদ্য প্রয়াত এই রাজাকে।

নিজের অনুভূতির কথা বলতে গিয়ে গ্যাওকর্ন ফুয়াংতং নামে এক ব্যক্তি এপিকে বলেছেন, বলার মতো কোনো ভাষা আমার জানা নেই। জীবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ মানুষগুলোর একজনকে আমি হারালাম। আমার মনে হচ্ছে, তার জন্য আমি খুব একটা বেশি কিছু করতে পারিনি। আমার আরো অনেক কিছু করা উচিৎ ছিল।

৭০ বছর থাইল্যান্ডের রাজতন্ত্রে থাকা রাজা ভূমিবল দেশটিতে ব্যাপক জনপ্রিয় ছিলেন। দেশটিতে বেশ কয়েকবার রাজনৈতিক সঙ্কট ও বিদ্রোহ দমন করে স্থিতিশীলতা নিয়ে এসেছেন তিনি।

বেশ কিছুদিন ধরে অসুস্থ ছিলেন তিনি। বৃহস্পতিবার যখন তারা মৃত্যুর কথা ঘোষণা করা হয় হাসপাতালের সামনে ভিড় করে থাকা মানুষগুলো কান্নায় ভেঙে পড়েন।

২০১৪ সাল থেকে সামরিক শাসনের অধীনে রয়েছে থাইল্যান্ড। বাহুবলের সমালোচনা রয়েছে, সামরিক অভ্যুত্থানের তার অনুমোদন ছিল এবং বিভিন্ন সময়ে মানবাধিকার লঙ্ঘনের বিষয়ে তিনি কোনো কথা বলেননি।