মেইন ম্যেনু

দলবেঁধে আত্মহত্যা করে যে প্রাণী

প্রাণী জগতে মানুষ একমাত্র প্রাণী যার চেতনা আছে ,যে চিন্তা করতে পারে , দুঃখ বেদনা ও সামাজিক দায়বদ্ধতা আছে , যে জন্য সে সমাজের প্রয়োজনে জীবনও দিতে পারে । কিন্তু মানুষ ছাড়াও অন্য প্রাণী যখন ভবিষ্যৎ প্রজম্মের জন্য জীবন দেয় তখনতো আশ্চর্য হওয়ারই কথা । তেমনি একটি আশ্চর্য প্রাণী লেমিং , যারা দলবেঁধে আত্মহত্যা করে ৷ কারণ এরা নিজ থেকে বা বুঝে শুনে সিদ্ধান্ত নিয়ে আত্মহত্যা করে৷ ইঁদুর প্রজাতির এই প্রাণী যখন দলবেঁধে যখন আত্মহত্যা করতে যায়,তখন পৃথিবীরকোনো শক্তি এদের আটকে রাখতে পারে না।এদের আত্মহত্যার কারণ অনুসন্ধান করতে গিয়ে জানা যায়,যখনই লেমিং জগতে হঠাৎ করে খাবারের অভাব দেখা দেয় বা বসবাসের জায়গা পছন্দ হয়না বা জনসংখ্যা অস্বাভাবিক হারে বেড়ে যায়, তখন নিজেদের অবস্থার ভারসাম্য বজায় রাখতে গিয়ে এরা দলবেঁধে আত্মহত্যা করে৷ দল বেঁধে আত্মহত্যা করতে যাচ্ছে লেমিং আত্মহত্যার সময় কিন্তু সব লেমিংরাই মরতে যায় না৷ কেবল যে পরিমাণে আত্মহত্যা করলে বাসস্থানের অভাব দূর হবে বা খাবারের ঘাটতি পড়বে না, কেবল সেই পরিমাণ লেমিং আত্মহত্যা করতে যায়৷ কারা আত্মহত্যা করবে সে বিষয়টিও তারা সুন্দরভাবে সিদ্ধান্ত নেয়৷ প্রথমে মরতে রাজি হয় বুড়োরা৷ স্ত্রী-পুরুষ সব বুড়োকেই প্রয়োজনে মরতে যেতে হবে৷ এটা যেন ওদের নিয়ম৷ তারপরও যদি অধিকসংখ্যক লেমিং মরার প্রয়োজন হলে অপেক্ষাকৃত বয়সীদের হিসেব করা হয়। প্রথমে পুরুষদের এবং পরে নারীদের৷ কারণ একটি স্ত্রী লেমিং অনেকদিন পর্যন্ত বাচ্চা দিতে সক্ষম৷