মেইন ম্যেনু

দহগ্রামে থ্রিজি উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

‘অনেক উন্নত দেশ যা পারছে না, তা বাংলাদেশিরা করে যাচ্ছে। এ ভাবেই অসাধ্যকে সাধন করছে বাংলাদেশিরা।’

বুধবার বেলা সাড়ে ১২টায় পাটগ্রাম উপজেলার দহগ্রাম উচ্চবিদ্যালয় মাঠে থ্রিজি উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ভিডিও কনফারেন্সে এ কথা বলেন প্রধামন্ত্রী শেখ হাসিনা।

ইন্টারনেট সেবা থ্রিজি উদ্বোধন প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা বলেন, ‘এক সময় মোবাইল ফোন ব্যয়বহুলভাবে শুধুমাত্র শহরে ব্যবহার হতো। বর্তমানে আমরা অল্প খরচে শহর হতে গ্রামাঞ্চলে ছড়িয়ে দিয়েছি মোবাইলের ব্যবহার। আজ আমরা থ্রিজিতে চলে গেছি।’

বিচ্ছিন্ন দহগ্রামে থ্রিজি সংযোগ দেয়ায় নেটওয়ার্ক কোম্পানিগুলোকে ধন্যবাদ জানিয়ে ভিডিও কনভারেন্সে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বেকারদের দক্ষকর্মী হিসেবে গড়ে তুলতে প্রতিটি উপজেলায় একটি করে প্রশিক্ষণ কেন্দ্র গড়ে তুলতে কাজ করছে সরকার। যাতে বেকার তরুণ-তরুণীরা প্রশিক্ষণ নিয়ে নিজেদের স্বাবলম্বী করতে পারে। সেই সঙ্গে প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ দিয়ে বেকারদের বিদেশে কর্মসংস্থান সৃষ্টি করছে সরকার।’ এ ভাবেই দেশ এগিয়ে যাচ্ছে বলেও মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী।

ইউনিয়ন পর্যায়ে তথ্য সেবা কেন্দ্রের বিষয় উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘এখন আর টাকা খরচ করে ঢাকায় যেতে হচ্ছে না। ঘরে বসেই দেশের মানুষ শিক্ষা, স্বাস্থ্য, কৃষিসহ সকল বিষয়ে তথ্য পাচ্ছে ইউনিয়ন তথ্য সেবা কেন্দ্র থেকে। ডাকঘরগুলোতে তথ্যসেবা কেন্দ্র স্থাপনের কাজ চলছে। এতে দেশের মানুষ ঘরে বসে সকল তথ্যসহ কেনা-কাটা করতে পারবে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘মানুষের দোরগোড়ায় স্বাস্থ্য সেবা পৌঁছাতে কমিউনিটি ক্লিনিক করা হয়েছে। এ ছাড়াও উপজেলা ও জেলা সদর হাসপাতালগুলোকে ৩০ শয্যা থেকে ৫০ শয্যায় এবং ৫০ শয্যার হাসপাতালে ১০০টি বেডের ব্যবস্থা করা হয়েছে। সেই সাথে মেডিকেল কলেজও বাড়ানো হয়েছে।’

প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, ‘এক সময় লালমনিরহাট ছিল মঙ্গা পিড়ীত অঞ্চল। আমরাই সর্ব প্রথম লালমনিরহাটে ভুট্টা চাষ করি। বর্তমানে সারা দেশে ভুট্টার চাষ হচ্ছে। শুধু ভ্ট্টুাই নয় লালমনিরহাটে এখন ১৫ শতাংশ উদ্বৃত্ত খাদ্য উৎপাদন হচ্ছে। এ ভাবেই এ অঞ্চল থেকে মঙ্গা শব্দটি বিদায় নিয়েছে।’

ভিডিও কনভারেন্সে দহগ্রামবাসীর আমন্ত্রণ গ্রহণ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘লালমনিরহাটে অনেক গিয়েছি, এ বছর কুড়িগ্রাম সফর করেছি। আগামীতে লালমনিরহাটের দহগ্রামে আসব। অবশ্যই আসব। গ্রামীণ ফোনের আয়োজনে বিচ্ছিন্ন দহগ্রাম-আঙ্গোরপোতায় থ্রিজি উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন গ্রামীণ ফোনের করপোরেট এফেয়ার্স মাহমুদ হোসাইন। বিশেষ অতিথি ছিলেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম।

অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- লালমনিরহাট-১ আসনের সংসদ সদস্য মোতাহার হোসেন, সংরক্ষিত আসনের এমপি অ্যাডভোকেট সফুরা বেগম রুমী, লালমনিরহাট পুলিশ সুপার টিএম মোজাহেদুল ইসলাম, পাটগ্রাম উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান রুহুল আমীন বাবুল, ইউএনও নুর কুতুবুল আলম।