মেইন ম্যেনু

রাবি শিক্ষক সমিতির কর্মবিরতি, ধর্মঘট

দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত প্রতি রবিবার কর্মবিরতি

প্রস্তাবিত অষ্টম পে-স্কেলের বেতন পুনঃনির্ধারনের দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত সপ্তাহের প্রতি রবিবার দেশের সকল পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মবিরতি ও অবস্থান ধর্মঘট পালন করা হবে। আজ রবিবার রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. আনন্দ কুমার সাহা এ কথা বলেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট ভবনের সামনে আয়োজিত এ কর্মসূচিতে রাবি শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. রেজাউল করিম বাদলের সঞ্চালনায় বক্তব্য দেন পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের এমিরিটাস অরুন কুমার বসাক, আরবি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ইফতেখারুল আলম মাসুদ, পরিবেশবিজ্ঞান ইনস্টিটিউট বিভাগের সহকারী অধ্যাপক এস এম শফিউজ্জামান প্রমুখ।

অবস্থান ধর্মঘটে অধ্যাপক ড. আনন্দ কুমার সাহা আরো বলেন, ‘গত ১১ আগস্ট বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের সম্মেলনে দেশের সব পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকবৃন্দ বসেছিলাম। সেখানে আমাদের সিদ্ধান্ত হয়েছে, সপ্তাহের প্রতি সোমবার মন্ত্রীপরিষদের যে বৈঠক বসে সেখানে আমাদের জন্য সম্মানজনক কোনো সিদ্ধান্ত না নেওয়া না হলে আমরা প্রতি রবিবার ৩ ঘণ্টা (সকাল ১০ টা থেকে ১ টা পর্যন্ত) কর্মবিরতি ও অবস্থান ধর্মঘট পালন করে যাবো। সেই সঙ্গে কালো ব্যাচ ধারণ করা হবে।’

প্রস্তাবিত অষ্টম পে-স্কেলে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের বেতন পুনঃনির্ধারনের দাবিতে রাবি শিক্ষক সমিতি পূর্ব নির্ধারিত এ কর্মসূচি পালন করে।

এ সময় বক্তারা বলেন, বহুল আকাক্সিক্ষত অষ্টম জাতীয় বেতন কাঠামোতে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকগণ যে বৈষম্যের শিকার হয়েছেন। তা কখনো মেনে নেয়ার মতো নয়। শুধু তাই নয় আমাদের মনে হয়েছে এই পে-কমিশন রিপোর্ট তৈরীর সাথে জড়িত সচিবগণ কৌশল করে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের মর্যাদার অবমাননা করার চেষ্টা করেছেন।

এ সময় গণস্বাক্ষর কর্মসূচি করা হয়। পদাথবিজ্ঞান বিভাগের এমিরিটাস অধ্যাপক অরুন কুমার বসাকের স্বাক্ষর করার মাধ্যমে স্বাক্ষর কর্মসূচি শুরু হয়। পরে এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের শতাধিক শিক্ষক এই স্বাক্ষর কর্মসূচিতে অংশগ্রহন করেন।

এ সময় বক্তারা আরো বলেন, আমাদের দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত প্রতি রোববার এই কর্মসূচি পালন করা হবে। এছাড়াও আগামী ১৯ তারিখের মধ্যে স্বাক্ষর অভিযান শেষ করে তা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক ফেডারেশনের কাছে পাঠানো হবে এবং প্রতি রোববার আন্দোলনের সময় কালো ব্যাচ ধারণ করা হবে।